Jago News logo
ঢাকা, সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৬ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ

ধৈর্যের বাধ ভেঙে গেলে কি হবে কেউ বলতে পারে না


নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০৫:১৩ পিএম, ০৮ নভেম্বর ২০১৬, মঙ্গলবার | আপডেট: ০৭:১৭ পিএম, ০৮ নভেম্বর ২০১৬, মঙ্গলবার
ধৈর্যের বাধ ভেঙে গেলে কি হবে কেউ বলতে পারে না

ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, গণতন্ত্রকে নিজস্ব গতিতে চলতে দিন, মানুষকে তাদের অধিকার ফিরিয়ে দিন। অন্যথায় ধৈর্যের বাধ ভেঙে গেলে কি হবে কেউ বলতে পারে না।

মঙ্গলবার দুপুরে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, সভা-সমাবেশ করা আমাদের গণতান্ত্রিক এবং সাংবিধানিক অধিকার। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হচ্ছে, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। তারা আবারো দমনপীড়ন করে সেই পুরনো একদলীয় বাকশালী শাসন ফিরিয়ে আনতে চাইছে ভিন্নভাবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল। আমরা বর্তমানে এই অনির্বাচিত এবং অগণতান্ত্রিক সংসদে নেই। স্বভাবতই জনমতকে সুসংগঠিত করতে আমরা সমাবেশ করার জন্য বারবার অনুমতি চাইবো। সরকারকে বলবো গণতন্ত্রকে সুস্থ ধারায় চলতে দিন। তাহলে দেশের রাজনৈতিক ও সামাজিক সংকট সমাধান হবে। এভাবে সভা-সমাবেশে বাধা দিয়ে দেশের সংকট নিরসন হবে না।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, সব রাজনৈতিক দলের আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই কেবল রাজনৈতিক সংকটের নিরসন সম্ভব। এ মতাবস্থায় সংলাপের কোনো বিকল্প নেই।

সমাবেশের অনুমতি না পেলে বিএনপি কি করবে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা অনমুতি চাইতেই থাকবো। আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ নিজেরা সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ করলো। ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় আলোকসজ্জা করলো। আর অন্যদেরকে সমাবেশ করতে দেয়া হবে না। এটা তো হয় না।

সংখ্যালঘু নির্যাতনের ব্যাপারে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ফখরুল বলেন, এই সরকারের চরিত্রই হলো নিজেদের ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করতে অন্যের ওপর দমন নিপীড়ন চালানো। ইতোমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঘটনার পর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বিএনপির বেশকিছু নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, মো. আব্দুস সালাম, আতাউর রহমান ঢালী, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্স, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, শহিদুল ইসলাম বাবুল, বেলাল আহমেদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

এমএম/জেএইচ/আরআইপি

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Comfy-For-Desk