Jago News logo
ঢাকা, সোমবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ | ১৫ ফাল্গুন ১৪২৩ বঙ্গাব্দ

কুয়েত মৈত্রী হলে ভূত!


মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল, বিশেষ সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ১১:৩৫ পিএম, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৪:২৬ পিএম, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, শুক্রবার
কুয়েত মৈত্রী হলে ভূত!

চারদিকে কান্নাকাটির শব্দ। বাঁচাও বাঁচাও চিৎকার। চারদিকে ছুটোছুটি। কেউ দৌড়াচ্ছেন ডানে কেউ বামে। কেউবা বাঁচাও বাঁচাও করে চিৎকার করে কান্না জুড়ে দিয়ে রাস্তার দিকে ছুটছেন। যারা দৌড়ে পালিয়ে যেতে পেরেছেন তারা রক্ষা পেলেও যারা পালাতে পারেননি তাদের ঘিরে আছে কালো কুচকুচে, বেটে ও লম্বু ও ঝাঁকড়া চুলের ভূতের দল।

bhut
হাউ মাউ খাও মানুষের গন্ধ পাও বলে কালা কুচকুচে একজন পুরুষ ভূত এক তরুণীকে জড়িয়ে ধরতে যায়। এ দৃশ্যে দেখে আরেক পাশের তরুণী ভয়ে মাটিতে পড়ে যায়। ভূতরা তখনও কয়েকজন তরুণীকে ঘিরে হাত পা ছুঁড়ে নৃত্য করছে।

এটি কোনো স্বপ্ন বা নাটকের দৃশ্যে নয়, বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজিলাতুনেচ্ছা মুজিব ও কুয়েত মৈত্রী হলের সামনে বাস্তবে এ দৃশ্য দেখা যায়।

bhut
কয়েক মিনিট আগেও এ দুই হলের পরিবেশ ছিল খুবই শান্ত। এ সময় এদিক সেদিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে খোশগল্পে ব্যস্ত তরুণ-তরুণীরা। হঠাৎ করেই একদল ভূতের আবির্ভাব ঘটায় দৃশ্যপট বদলে যায়। শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নয়, নিউমার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেটের মানুষ দোকান বন্ধ করে ফেরার পথে আজ বৃহস্পতিবার রাতে ভূতের কবলে পড়ে। ভূতেরা কয়েক মিনিট তাণ্ডব চালিয়ে স্থান ত্যাগ করে।

bhut
চারুকলা অনুষদের শাহনেওয়াজ হোস্টেলের ২৭ জন শিক্ষার্থী বৃহস্পতিবার রাতে ভূত সেজে রাস্তায় নামেন। নিউমার্কেটের রাস্তা হয়ে তারা কুয়েত মৈত্রী ও ফজিলাতুননেছা মুজিব হল প্রদক্ষিণ করে। এ সবই ছিল তাদের হাসি ঠাট্টার অংশ।

bhut
চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীরা জানান, তারা বিশ্ব ভালোবাসা দিবস অর্থাৎ ভ্যালেন্টাইন ডে’র বিপক্ষে। গত ১৭ বছর যাবত তারা ১৪ ফেব্রুয়ারির পরদিন অর্থাৎ ১৫ ফেব্রুয়ারি ভূত উৎসব পালন করে আসছেন। এবার কিছু সমস্যার কারণে একদিন পিছিয়ে আজ ১৬ ফেব্রুয়ারি দিবসটি পালন করে। এ দিনটিতে তারা ভূত সেজে হাই বিটে বাজানো গানের সঙ্গে নেচে গেয়ে ফূর্তি করে, মেয়েদের হোস্টেলে গিয়ে প্রেমিক-প্রেমিকাদের প্রেমে নিরুৎসাহিত করে।

bhut
কারণ জানতে চাইলে তারা বলেন, বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের ফাঁদে পড়ে তাদের অনেক সিনিয়র ভাই বিপথে গেছেন। প্রেমিকাকে বিশ্বাস করে মনপ্রাণ সব উজাড় করে দিলেও ছ্যাঁকা খেয়েছেন। এ দিবসটি যেন ভালো নয় তা স্মরণ করিয়ে দিতেই তারা কেউ পুরুষ ও কেউ নারী সেজে   এই ভূত উৎসব পালন করে।



চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীদের এ আয়োজন কিছুটা ভীতির সৃষ্টি করলেও এক পর্যায়ে তরুণীরা ভূতের সঙ্গে সেলফি তুলে দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখেন।







এমইউ/বিএ

আপনার মন্তব্য লিখুন...