‘স্বল্প জীবনকালীন বোরোর বিকল্প নেই’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:৫০ এএম, ২০ নভেম্বর ২০১৭

কৃষি কর্মকর্তাদের উদ্দেশে কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, স্বল্প জীবনকালীন বোরোর কোনো বিকল্প নেই। যদি স্বল্প জীবনকালীন বোরো কৃষকের হাতে দিতে পারেন তাহলে বোরো আরও অনেকদিন থাকবে। আর যদি তা না হয় কৃষক বোরো করবে না, জমি খালি রাখবে। অন্য কাজে ব্যবহার করবে। কৃষককে জোর করে কিছু করাতে পারবেন না।

নির্বিঘ্নে বোরো আবাদ : সতর্কতা ও করণীয়’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। রোববার কৃষি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের আয়োজনে রাজধানীর (বিএআরসি) অডিটোরিয়ামে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের বিজ্ঞানীদের এমন জাত উদ্ভাবন করতে হবে যা ব্রি-২৮ এর মতো জীবনকাল, কিন্তু ফলন দেবে ব্রি২৯ এর মতো। তাহলে কৃষকরা বোরো উৎপাদনে উৎসাহিত হবে।

তিনি আরও বলেন, একই জমিতে বারবার ধান উৎপাদনের সংস্কৃতি থেকে আমাদের বের হয়ে আসতে হবে। এতে রোগবালাই ও পোকার আক্রমণ কম হবে। এ ব্যাপারে কৃষকদের প্রশিক্ষিত করতে হবে।

আমাদের ভূগর্ভস্থ পানি অত্যন্ত দ্রুত হারে নেমে যাচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এ অবস্থায় বরেন্দ্র অঞ্চলে ডিপ টিউবওয়েল স্থাপনে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। ভূউপরিস্থ পানি ব্যবহার করে চাষাবাদের ওপর জোর দেন কৃষিমন্ত্রী।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় আরও বক্তব্য রাখেন- কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. আব্দুল আজিজ ও বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মো. নাসিরুজ্জামান ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. ভাগ্য রানী বণিক।

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর ও পরিচালক (প্রশাসন) ড. মো. আনছার আলী কর্মশালায় দুটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রাক্তন সচিব ড. এস এম নাজমুল ইসলাম। কর্মশালার সার-সংক্ষেপ উপস্থাপন করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রসারণ) মো. মোশারফ হোসেন।

এফএইচএস/এনএফ/জেআইএম