জাতীয়

বাজেটে কাঙ্ক্ষিত প্রতিফলন ঘটছে কিনা এমপিরা খোঁজ রাখতে পারেন

জাতীয় সংসদের স্পিকার এবং অল পার্টি পার্লামেন্টারি গ্রুপের (এপিপিজি) সভাপতি ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষা বাজেটে প্রতিফলিত হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে সংসদ সদস্যরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন। এ বিষয়ে তারা খোঁজ রাখতে পারেন।

তিনি বলেন, রূপকল্প ২০২১ অনুযায়ী সরকার পরিচালিত হচ্ছে। এছাড়া ২০২৪ সালের মধ্যে উন্নয়নশীল, ২০৩০ সালে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জন এবং ২০৪১ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গঠনের লক্ষ্য অর্জনেও সরকার বদ্ধপরিকর। লক্ষ্য অর্জনে জাতীয় বাজেট কতটুকু সহায়ক তা বিশ্লেষণ করতে পারেন এমপিরা।

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) ঢাকায় স্থানীয় একটি হোটেলে অল পার্টি পার্লামেন্টারি গ্রুপ (এপিপিজি) আয়োজিত দুই দিনব্যাপী লিডারশিপ ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে তিনি এ কথা বলেন।

লিডারশিপ ওরিয়েন্টেশনের সভাপতি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এবং জাতীয় সংসদের যুব, কর্মসংস্থান ও আইসিটি সম্পর্কিত সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপের সভাপতি মো. জাহিদ আহসান রাসেলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান।

স্পিকার বলেন, বাজেট প্রস্তুতকরণ একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। নির্বাহী বিভাগের সব প্রক্রিয়া শেষে বাজেট জাতীয় সংসদে উপস্থাপন এবং পাস হয়। সংসদ সদস্যদের জাতীয় সংসদ এবং সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে বাজেট সম্পর্কে মতামত দেয়ার সুযোগ রয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার গত এক দশকে বাজেটে গুণগত অনেক পরিবর্তন এনেছে। বাজেটের কলেবরও বৃদ্ধি পেয়েছে। জেন্ডারভিত্তিক বাজেট বিশেষ করে নারীদের জন্য সব মন্ত্রণালয়ে পৃথক বরাদ্দ থাকছে। এছাড়াও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, শিশু ও প্রতিবন্ধীদের জন্যও পৃথক বরাদ্দ রাখা হচ্ছে বাজেটে।

তিনি বলেন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং উন্নয়ন সুবিধা তৃণমূলে পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে। এ সময় পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্ত করে দারিদ্র্য  বিমোচন সহায়ক বাজেট প্রণয়নে সংসদ সদস্যদের ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান তিনি।

দুদিনের ওরিয়েন্টেশনের রিসোর্স পারসন ছিলেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থাযী কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার, সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. রুস্তম আলী ফরাজী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ, সিপিডির ডিস্টিংগুইশ ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান, বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হুসেইন, কমনওয়েলথ সচিবালয়ের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিভাগের সাবেক প্রধান ও র‌্যাপিডের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক, যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বাজেট বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান ফিন্যান্সিয়াল ভ্যালুন্টারি ক্রপ্সের পরিচালক মি. অ্যাডওয়ার্ডস সিয়া এবং আন্তর্জাতিক বাজেট বিশেষজ্ঞ মিস ক্যাথরিন গেস্ট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. এম আবু ইউসুফ ও এপিপিজির সেক্রেটারি জেনারেল শিশির শীল।

দুই দিনব্যাপী এ লিডারশিপ কনফারেন্সে ৩০ সংসদ সদস্য অংশ নেন।

এইচএস/এএইচ/পিআর