বিশেষ প্রতিবেদন

আনন্দ নেই তাই আয়োজনও নেই

রাজধানীর অলিগলিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের ঈদ শুভেচ্ছা ব্যানার, পোস্টার ও ফেস্টুন দেখা গেলেও ব্যতিক্রম কেবল বিএনপির নেতাকর্মীদের ক্ষেত্রে। রাজধানীর কোথাও চোখে পড়ছে না দলটির নেতাকর্মীদের এমন আয়োজন, যা প্রতি বছরই মানুষের নজর কাড়ত।

জানা গেছে, দলটির পক্ষ থেকে এবার ঈদ শুভেচ্ছার আয়োজন করা হবে কি-না, তা নিয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে দলের অনেকেই যে যার মতো করে ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

দলের সিনিয়র নেতাদের অধিকাংশই এবারের ঈদে ঢাকায় থাকছেন। প্রথম সারির কয়েকজন ছাড়া চতুর্থ সারি থেকে পরের স্তরের অধিকাংশ নেতা নিজ নিজ এলাকায় ঈদ করবেন।

দলীয় সূত্র জানায়, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে ঈদ কার্ডের মাধ্যমে শুভেচ্ছা পাঠানো হয়েছে। এছাড়া দলের ক্ষতিগ্রস্ত সহস্রাধিক নেতাকর্মীর পরিবারে দেয়া হয়েছে ঈদসামগ্রী।

দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া কারাবন্দি থাকায় ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়ের অনুষ্ঠান আয়োজনের আগ্রহ নেই দলের সিনিয়র নেতাদের মধ্যে। ফলে নেতাকর্মীরা যে যার মতো ঈদ উদযাপন করবেন। কেউ দেশের বাইরে, কেউ বা নিজ নির্বাচনী এলাকায় আবার কেউ ঢাকায় ঈদ উদযাপন করবেন।

আরও পড়ুন : নিয়তিকে মেনে নিয়ে কেবিনেই সংসার পেতেছেন খালেদা!

এবারের ঈদে সিনিয়র নেতাদের মধ্যে ঢাকায় ঈদ করবেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, লে. জে. (অব.) মাহাবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান, বেগম সেলিমা রহমান এবং যুগ্ম মহাসচিবদের মধ্যে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ।

নিজ এলাকায় ঈদ উদযাপন করতে যাচ্ছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ (নোয়াখালী), ড. আব্দুল মঈন খান (নরসিংদী), ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান (চট্টগ্রাম), আলতাফ হোসেন চৌধুরী (পটুয়াখালী), বরকতউল্লা বুলু (নোয়াখালী), মো. শাজাহান (নোয়াখালী), চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ (ফরিদপুর), ব্যারিস্টার শাজাহান ওমর (ঝালকাঠি), মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ (ভোলা), অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান (টাঙ্গাইল), ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন (ময়মনসিংহ), শামসুজ্জামান দুদু (চুয়াডাঙ্গা), উপদেষ্টা পরিষদের আবুল খায়ের ভূইয়া (লক্ষ্মীপুর), হেলালুজ্জামান তালকুদার লালু (বগুড়া), গোলাম আকবর খন্দকার (চট্টগ্রাম), যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান সরোয়ার (বরিশাল), ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন (নোয়াখালী), খায়রুল কবীর খোকন (নরসিংদী), মিজানুর রহমান মিনু (রাজশাহী) প্রমুখ।

আরও পড়ুন : ছাত্রদল নেতাদের সঙ্গে তারেকের ভিডিও কনফারেন্স

এছাড়া পবিত্র ওমরাহ পালনে সৌদি আরবে রয়েছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও আব্দুস সালাম, চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, লন্ডনে চিকিৎসার জন্য রয়েছেন জয়নাল আবদীন ফারুক। তারা ওই দেশগুলোতে ঈদ উদযাপন করবেন।

ঈদে ঢাকায় কেন্দ্রীয় কোনো কর্মসূচি আছে কিনা- এমন প্রশ্নে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, ঈদের মধ্যে আর কী থাকে প্রোগ্রাম?

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘কোনো প্রোগ্রাম আছে কি-না, ঠিক জানা নেই।’

তবে দলীয় নেতাকর্মীদের এবারের ঈদ উদযাপন প্রসঙ্গে রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ বলেন, ‘গণতন্ত্রের মা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারাবন্দি। মিড নাইট সরকারের মামলা-হামলায় জর্জরিত দলের নেতাকর্মীরা। এ অবস্থায় নিদারুণ কষ্টের মধ্যে নেতাকর্মীরা ঈদ যাপন করবেন।’

আরও পড়ুন : বিভেদ বিভাজন নয়, বিএনপি উঠে দাঁড়াবে : ফখরুল

বিগত দিনের মতো এবারও ঈদের দিন দলের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা বিনিময়ের আয়োজন থাকছে কি-না, এ বিষয়ে রিজভী বলেন, এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি । সিদ্ধান্ত হলে জানানো হবে।

তবে দফতরের একটি সূত্র জানায়, ঈদের দিনে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারত করবেন।

কেএইচ/এএইচ/এমএআর/এমএস