জাতীয়

রিকশা চলবে বাইলেনে

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, অবৈধ রিকশা শনাক্ত করতে বৈধ রিকশাগুলোতে কিউআর কোড বসানো হবে। সেই সঙ্গে মূল সড়কে রিকশা না চলে চলাচল করবে বাইলেনে। এছাড়া তারা (রিকশাচালকরা) নন-মেকানিক্যাল ট্রান্সপোর্ট (এনএমটি) বা বাইলেনে রিকশা চালাবেন।

বুধবার দুপুরে গুলশানে নগর ভবনে রিকশা মালিক, চালক প্রতিনিধি এবং ওয়ার্ড প্রতিনিধিদের সঙ্গে এক বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

এক উদাহরণ টেনে মেয়র বলেন, ‘একটি রিকশা যদি কুড়িল থেকে রামপুরা যেতে চায় তাহলে বাইলেন দিয়ে যেতে হবে, যেখানে বাইলেন সেখানে নন-মেকানিক্যাল ট্রান্সপোর্ট (এনএমটি) বা ভেতরের রাস্তা দিয়ে যাবে। এ ছাড়া কুড়িল রোডের শেষ প্রান্তে রিকশা ইউটার্ন নিতে পারবে। পাশাপাশি রামপুরা ব্রিজ ব্যবহার করতে পারবে।‘

মেয়র আরও বলেন, ‘অবৈধ রিকশা ও গ্যারেজ শনাক্ত করতে আমরা ওয়ার্ডভিত্তিক কমিটি গঠন করে দেব। সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বৈধ রিকশাগুলোকে কিউআর কোড করে দেয়া হবে। এটার যেন নকল না হতে পারে সেজন্য সর্বোচ্চ উন্নত প্রযুক্তি ও প্রযুক্তিবিদদের কাজে লাগানো হবে। চালকদের ডাটাবেস করা হবে। এতে বোঝা যাবে কোন রিকশা কে চালাচ্ছেন। পর্যায়ক্রমে রিকশাচালকদের জন্য ওয়ার্ডভিত্তিক ড্রেস করে দেয়া হবে।

গত ৩ জুলাই রাজধানীর নির্দিষ্ট তিনটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধের ঘোষণা দেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন। পরে একই সিদ্ধান্তের কথা জানান উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম।

সিদ্ধান্ত হয়, প্রাথমিকভাবে গাবতলী থেকে আসাদগেট হয়ে আজিমপুর ও সায়েন্স ল্যাব থেকে শাহবাগ পর্যন্ত রিকশা চলাচল করবে না। এ ছাড়া কুড়িল বিশ্বরোড থেকে রামপুরা হয়ে খিলগাঁও-সায়েদাবাদ পর্যন্ত রিকশাসহ অন্যান্য অবৈধ ও অননুমোদিত যানবাহন চলবে না। ডিটিসিএর (ঢাকা ট্রান্সপোর্ট কন্ট্রোল অথরিটি) এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে রিকশাচালকরা গত দুইদিন ধরে আন্দোলন করে আসছিল।

এএস/এসআর/এমকেএইচ