জাতীয়

বাসচাপায় নিহত শিল্পী পারভেজের আহত পুত্রের পাশে তথ্যমন্ত্রী

রাজধানীর শ্যামলীতে ট্রমা সেন্টারে বাসচাপায় গুরুতর আহত কিশোর আলভীকে দেখতে যান তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। গত ৫ সেপ্টেম্বর যে পরিবহনের বাসচাপায় উত্তরায় সংগীতশিল্পী পারভেজ নিহত হন, সেই একই পরিবহনের বাস চাপায় ৮ সেপ্টেম্বর তার কনিষ্ঠ পুত্র আলভী গুরুতর আহত ও তার বন্ধু মেহেদী নিহত হন।

বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আলভীকে দেখার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘প্রথমত শিল্পী পারভেজকে যেভাবে চাপা দেয়া হয়েছে এরপর তার ছেলে একই কোম্পানির গাড়িতে যেভাবে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন, দুটিই দুর্ঘটনা কিনা বিশেষ করে পরেরটি তদন্তের দাবি রাখে। আমি মনে করি অসচেতনভাবে গাড়ি চালানোর কারণে মানুষের মৃত্যু, পঙ্গুত্ব- এগুলো সব সড়ক দুর্ঘটনা নয়, কিছু খুনের ঘটনা। সুতরাং এগুলোর লাগাম টেনে ধরতেই হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘ভুয়া লাইসেন্স বা রোড পারমিট ছাড়া গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে দায়ী সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন, সরকার এ বিষয়ে কাজ করছে।’

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সিংহভাগ অর্থাৎ বেশিরভাগ চালক ভালোভাবে গাড়ি চালানোর চেষ্টা করে, ইচ্ছাকৃতভাবে দুর্ঘটনা ঘটায় না। কিন্তু কিছু চালক বেপরোয়া গাড়ি চালায়, একে অপরের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় করে, অনেক ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃতভাবে চাপা দেয়। এরা দুষ্কৃতকারী, দুর্বৃত্ত। অসচেতনভাবে, ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানো এ সব চালকের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই। এদের কারণেই দুর্ঘটনা ঘটছে। এদের অবশ্যই নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে।’

‘সরকার ইতোমধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে এবং ১১১টি সুপারিশ সেখানে নেয়া হয়েছে। আশা করি, এ সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন হলে সড়ক দুর্ঘটনা অনেকাংশেই কমে যাবে’ বলেন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

তথ্যমন্ত্রী বিনা খরচে আলভীর চিকিৎসা চালানোর জন্য ট্রমা সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হককে অনুরোধ জানালে তিনি তা করার আশ্বাস দেন।

এ সময় আলভীর মা রুমানা সুলতানা, সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক, বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী রফিকুল আলম উপস্থিত ছিলেন।

আরএমএম/এএইচ/এমকেএইচ