জাতীয়

ক্রেতার সঙ্গে প্রতারণা : দুই প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

আইনে রয়েছে মোড়কজাত পণ্যে সর্বোচ্চ খুচরা বিক্রয়মূল্য লিখতে হবে। যার বেশি দামে দোকানদার কিংবা শোরুম ওই পণ্য বিক্রি করতে পারবে না। অথচ এ নিয়ম মানছে না অনেক প্রতিষ্ঠান। ক্রেতাদের ঠকিয়ে অতিরিক্ত মূল্য আদায় করছে তারা, যা এক ধরনের প্রতারণা। এ অপরাধে দুই প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর।

বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর গুলশান-১ এ অভিযান চালিয়ে এ জরিমানা করেন অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মাসুম আরেফিন ও আব্দুল জব্বার মণ্ডল।

অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করেন এপিবিএন-১ এর সদস্যরা। সার্বিক তত্ত্বাবধান করেন অধিদফতরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক (উপসচিব) মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার।

অধিদফতরের সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মণ্ডল জাগো নিউজকে বলেন, মোড়কজাত পণ্যে সর্বোচ্চ খুচরা বিক্রয়মূল্য লেখার বিধান রয়েছে। কিন্তু এলজি বাটারফ্লাইসহ অপর একটি প্রতিষ্ঠানের ইস্তিরি, বাল্ব, ফ্যানসহ অনেক মোড়কজাত পণ্যে খুচরা মূল্য লেখা নেই। এতে ক্রেতারা প্রতারিত হচ্ছেন। এ অপরাধে এলজি বাটারফ্লাইকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পাশাপাশি দুই প্রতিষ্ঠানকে সতর্কও করা হয়েছে।

এছাড়া বিদেশি মোড়কজাত পণ্যসামগ্রীর গায়ে সর্বোচ্চ খুচরা বিক্রয়মূল্য না থাকার অপরাধে একটি সুপার শপকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভোক্তা অধিদফতর।

এসআই/এসআর/এমকেএইচ