অর্থনীতি

স্পট মার্কেটে আলহাজ টেক্সটাইল, শামসুল হুদার শেয়ার ফ্রিজ

আলহাজ টেক্সটাইলের শেয়ার লেনদেনের ক্ষেত্রে আইন লঙ্ঘন করায় প্রতিষ্ঠানটির শেয়াহোল্ডার পরিচালক মো. শামসুল হুদার সব সিকিউরিজিট (শেয়ার) ফ্রিজ (শেয়ার ক্রয়-বিক্রয়, হস্তান্তর, বন্ধকসহ সকল ধরনের লেনদেন বন্ধ) করেছে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। একই সঙ্গে আলহাজ টেক্সটাইলের শেয়ার মূল মার্কেট থেকে সরিয়ে নিয়ে স্পট মার্কেটে লেনদেন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ৬৯৬তম কমিশন সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান জানিয়েছেন।

সাইফুর রহমান জানান, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ গত ১০ জুলাই আলহাজ টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডের শেয়ারহোল্ডার পরিচালক মো. শামসুল হুদার বিরুদ্ধে ফেব্রুয়ারি মাসে ঘোষণা ছাড়া ২০ হাজার শেয়ার বিক্রির অভিযোগ কমিশনে একটি তদন্ত প্রতিবেদন পাঠায়। যা ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের তালিকাভুক্তির নীতিমালা ২০১৫-এর ৩৪ (১) ধারা লঙ্ঘন।

এছাড়া কোম্পানিটির পরিচালকদের শেয়ার ধারণের পরিমাণ ৩০ শতাংশের নিচে। এটি ২০১৯ সালের ২১ মে দেয়া কমিশনের নির্দেশনার লঙ্ঘন। এসব অনিয়ম করার কারণে বিষয়টি কমিশনের এনফোর্সমেন্ট বিভাগে গত ৩০ জুলাই পাঠানো হয়।

পরবর্তীতে এ বিষয়ে আরও অনুসন্ধান করে বিএসইসি প্রমাণ পায়, মো. শামসুল হুদা ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আলহাজ টেক্সটাইলের ৪ লাখ ৮৪ হাজার ৪৪১টি শেয়ার বিক্রি এবং ৯ হাজার ১০০টি শেয়ার ক্রয় করেছেন। তিনি এসব শেয়ার ক্রয়-বিক্রিয় করেন ডিএসইর ট্রেকহোল্ডার এএনএফ ম্যানেজমেন্টের মাধ্যমে। শামসুল হুদা ট্রেকহোল্ডারি কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

শামসুল হুদার শেয়ার লেনদেনের ফলে আলহাজ টেক্সটাইলের পরিচালকদের শেয়ার ধারনের পরিমাণ ৩০ শতাংশের নিচে নেমে আসে। এছাড়া কোম্পানির পরিচালক হিসেবে তিনি বিএসইসিতে কোনো তথ্যও দেননি। বরং চলতি বছরের ১৫ জানুয়ারি অগ্রণী ব্যাংক থেকে ৫৫ কোটি ৮৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫৭৮ টাকা পাওয়ার একটি মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ করে, যা পরবর্তীতে সঠিক নয় বলে জানা যায়।

এসব অনিয়মের কারণে বিএসইসি মো. শামসুল হুদার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এনফোর্সমেন্ট বিভাগে নির্দেশ দিয়েছে। একই সঙ্গে এনফোর্সমেন্ট সিদ্ধান্ত পর্যন্ত শামসুল হুদার সকল সিকিউরিটিজ স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া এএনএফ ম্যানেজমেন্ট’র বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলোও এনফোর্সমেন্ট বিভাগে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি আলহাজ টেক্সটাইলের শেয়ার পরবর্তী কার্যদিবস থেকে স্পট মার্কেটে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এমএএস/এসএইচএস/এমকেএইচ