জাতীয়

স্বামীকে বের করে দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা স্ত্রীর, উদ্ধার করল পুলিশ

বৈশ্বিক মহামারি করোনায় ঘরবন্দি নগরবাসী। এই গৃহবন্দিকালে পারিবারিক কোন্দল সহিংসতা এবং নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা উদ্বেগজনক মাত্রায় বাড়ছে বলে জানিয়েছে মহিলা পরিষদ। এরই মধ্যে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে পারিবারিক কোন্দলের জেরে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন এক নারী আইনজীবী।

শুক্রবার দিবাগত রাতে স্বামীর সাথে ঝগড়া-মনোমালিন্যের জেরে অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ সেবনে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন আয়শা আক্তার আশা নামে ওই আইনজীবী।

পরে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কলে জানতে পেরে ওই নারীকে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কামরাঙ্গীরচর থানার ওসি মোহাম্মদ মোস্তফা আনোয়ার জানান, শুক্রবার দিবাগত রাতে হঠাৎ ৯৯৯ থেকে জানানো হয় ওই নারীর আত্মহত্যার চেষ্টার কথা। খবর পেয়েই উপ-পরিদর্শক (এসআই) শেখ মো. মোরশেদ আলীর তত্ত্বাবধানে একটি টিম সেখানে পাঠিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ঘটনা সম্পর্কে এসআই শেখ মো. মোরশেদ আলী জাগো নিউজকে বলেন, স্বামী গিয়াস উদ্দিন ও সন্তানকে নিয়ে আইনজীবী ও গৃহবধূ আয়শা আক্তার আশা বাবার বাড়িতেই থাকেন।

লকডাউনে অধিক সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় সময় দেয়াসহ বনিবনা না হওয়ার জেরে মনোমালিন্য, ঝগড়া চলছিল ক'দিন ধরে। গত রাতে তা আরও বৃদ্ধি পায়। রাগ করে স্ত্রীই স্বামীকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এরপর স্ত্রী আয়শা আক্তার অধিক পরিমাণ ঘুমের ওষুধ সেবনে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। স্বামী বিষয়টি জানতে পেরে ৯৯৯-এ কল করে স্ত্রীকে বাঁচানোর জন্য সহায়তা চান।

মোরশেদ আলী আরও বলেন, ৯৯৯ থেকে আমাদের কামরাঙ্গীরচর থানার সাথে যোগাযোগ করা হয়। আমি নিজে রাত ২টার দিকে ঘটনাস্থলে যাই। খুঁজে বের করি বাড়ি। ওই নারীকে অচেতন অবস্থায় ঘর থেকে বের করি। কিন্তু কোনো ধরনের যানবাহন বা অ্যাম্বুলেন্স না পেয়ে পুলিশের টহল গাড়িতেই ওই নারীকে ভোর সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে করোনা ঝুঁকি বিবেচনায় মুগদা হাসপাতালে পাঠানো হয়।

জেইউ/এনএফ/জেআইএম