আন্তর্জাতিক

নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ

লকডাউনের নিয়ম ভঙ্গ করে সমালোচনার মুখে পদত্যাগ করলেন নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডেভিড ক্লার্ক। নিয়মের বাইরে গিয়ে নিজের পরিবারকে নিয়ে সমুদ্র সৈকতে গিয়েছিলেন এই মন্ত্রী। খবর বিবিসির।

বৃহস্পতিবার ডেভিড ক্লার্কের পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডার্ন। সাম্প্রতিক সময়ে অনেক শক্তিশালী দেশও যখন করোনার কাছে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে তখন কঠোর বিধি-নিষেধের কারণে করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে নিউজিল্যান্ড।

করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর লাগাম ধরে রাখতে পারায় অনেক দেশের কাছেই নিউজিল্যান্ড এখন অনুকরণীয়। এমন এক সময়েই দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী পদত্যাগ করলেন।

দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ৫২৮ জন। এর মধ্যে মারা গেছে ২২ জন। গত মাসেই দেশটি থেকে সব ধরনের বিধি-নিষেধ তুলে নেওয়া হয় এবং প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডার্ন তার দেশকে করোনামুক্ত ঘোষণা করেন।

নিউজিল্যান্ডে করোনাভাইরাস নির্মূল করতে শুরু থেকেই কঠোর লকডাউন দিয়েছিল দেশটির সরকার। জুন মাসেই তাদের বেশ কিছু পদক্ষেপ সফল প্রমাণিত হয়েছে।

তবে সম্প্রতি কিছু ঘটনার কারণে নিউজিল্যান্ড আর ভাইরাস মুক্ত অবস্থানে থাকতে পারবে না বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

দেশটিতে সাম্প্রতিক সময়ে গুরুতর অসুস্থ একজন ব্যক্তিকে দেখার জন্য নির্ধারিত সময়ের আগেই আইসোলেশন থেকে দুই ব্যক্তিকে মুক্ত করে দেয়া হয়। পরবর্তীতে তাদের কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী থাকাকালীন এমন একটি সিদ্ধান্ত নেয়ার দায় নিজের ঘাড়েই নিয়েছেন ডেভিড ক্লার্ক। তিনি বলেছেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে থাকাকালীন এই সিদ্ধান্তের পুরো দায়িত্ব আমি নিচ্ছি। তিনি আরও বলেন, এখনই সঠিক সময় সরে দাঁড়ানোর।

টিটিএন/পিআর