জাতীয়

‘তোয়াজ করার মনোভাব মিয়ানমারকে সাহসী করে তুলছে’

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উদ্দেশে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে কেবল বাংলাদেশই নয়, মিয়ানমারের দিকেও নজর দিতে হবে। প্রত্যাবাসনের জন্য বাংলাদেশ তৈরি, কিন্তু মিয়ানমারের অনাগ্রহে সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের তোয়াজ করার মনোভাব মিয়ানমারকে আরও সাহসী করে তুলছে।

Advertisement

বৃহস্পতিবার (০৩ ডিসেম্বর) ‘রোহিঙ্গা সমস্যার তূলনামূলক চিত্র’ শীর্ষক দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, প্রত্যাবাসন দীর্ঘায়িত হলে বাংলাদেশ এবং এ অঞ্চলের অন্য দেশগুলোও অস্থিতিশীল হবে। মানবিক সহায়তা সাময়িক স্বস্তি দিতে পারে। কিন্তু এটি সমস্যা সমাধানে সহায়ক নয়।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যে মানবিক সহায়তা দিচ্ছে, একই রকম সহায়তা মিয়ানমারে থাকা রোহিঙ্গাদের রক্ষা এবং বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে আস্থা ফেরানোর জন্য দেয়া উচিত।

Advertisement

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, মিয়ানমারকে প্রভাবিত করার সক্ষমতা যেসব দেশের আছে, হয় তারা সেটি ব্যবহার করতে চাইছে না অথবা তারা মিয়ানমারকে তোয়াজ করার নীতি অনুসরণ করছে। এটি অবশ্যই বন্ধ হতে হবে।

বিষয়টিকে দুর্ভাগ্যজনক বলে আখ্যা দেন তিনি।

মাসুদ বিন মোমেন বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এ তোয়াজ করার মনোভাব মিয়ানমারকে আরও সাহসী করে তুলছে। প্রত্যাবাসন ও স্থায়ী সমাধানের চেয়ে জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় মানবিক সহায়তা দিতে বেশি আগ্রহী বলে আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে।

মিয়ানমারে নির্বাচনের পর নতুন করে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া দ্রুত শুরু হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

Advertisement

এসএস/এমকেএইচ