দেশজুড়ে

‘নিজেরা নির্বাচনী অফিসে আগুন দিয়ে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে’

নড়াইলের কালিয়া পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন অভিযোগ করেছেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়নপাপ্ত প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরা নৌকা মার্কার অফিসে আগুন দিয়ে তার নামে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।

Advertisement

তাই তিনি সংশ্লিষ্টদের ঘটনাটি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার দাবি জানান।

রোববার (২৪ জানুয়ারি) বিকেলে কালিয়া পৌরসভার বেন্দারচর এলাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে লিটন এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি বিগত পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করি। গত পাঁচ বছরে পৌরসভার ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। এবারের নির্বাচনেও কাস্টিং ভোটের ৮০ শতাংশ ভোট পেয়ে ইনশাল্লাহ নির্বাচিত হবো। আমার এই জনপ্রিয়তা দেখে ঈর্ষান্বিত হয়ে প্রতিপক্ষ নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরা পরিকল্পিতভাবে নিজের নির্বাচনী অফিস পুড়িয়ে আমাদের হয়রানি করার চেষ্টা করছে।’

Advertisement

লিটন আরও বলেন, ‘কালিয়া পৌরসভার ভোটাররা সচেতন। আশা করি, তারা এসব ষড়যন্ত্রের জবাব আগামী ৩০ জানুয়ারি ব্যালটের মাধ্যমে দেবেন।’

তিনি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্পন্ন করতে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান। সংবাদ সম্মেলনের সময় মুশফিকুর রহমান লিটনের কর্মী-সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, শনিবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে বড়কালিয়ার ব্যাপারীপাড়ায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরার একটি নির্বাচনী কার্যালয়ে ককটেল নিক্ষেপ করে পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটে । এ ঘটনায় প্রতিপক্ষ স্বতন্ত্র প্রার্থী ফকির মুশফিকুর রহমান লিটনের কর্মী সমর্থকরা জড়িত বলে হীরা অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে নড়াইলের সহকারী পুলিশ সুপার (কালিয়া সার্কেল) রিপন চন্দ্র সরকার বলেন, বিষয়টি সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কালিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আগামী ৩০ জানুয়ারি কালিয়া পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরা, বিএনপির এসএম ওয়াহিদুজ্জামান মিলু ও বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন।

Advertisement

এছাড়া সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে নয়জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা ১৬ হাজার ৩৮৩ জন।

হাফিজুল নিলু/এমআরআর/এমএস