খেলাধুলা

নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে উয়েফাকে পাল্টা হুমকি বার্সা-রিয়ালের

প্রস্তাবিত ইউরোপিয়ান সুপার লিগের ১২ ক্লাবের মধ্যে ৯টিই বের হয়ে গেছে। বাকি আছে ইউরোপের তিন জায়ান্ট ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা এবং জুভেন্টাস। শুক্রবার এক সিদ্ধান্তে উয়েফা জানিয়েছে, অন্তত দুই বছরের জন্য উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিষিদ্ধ করা হবে এই তিন ক্লাবকে।

Advertisement

উয়েফার হুমকির একদিন পরই একটি যুক্ত বিবৃতি প্রকাশ করেছে রিয়াল-বার্সা-জুভেন্টাস। যেখানে অভিযোগ করা হয়েছে, প্রস্তাবিত প্রজেক্টকে বাতিল করার জন্য অসহনীয় চাপ তৈরি করা হচ্ছে তাদের ওপর।

শুক্রবারই প্রস্তাবিত উয়েফা সুপার লিগের উদ্যোক্ত তিন ক্লাবের ওপর শাস্তির ঘোষণা দেন উয়েফা সভাপতি আলেক্সান্ডার সেফেরিন। সেই ঘোষণা অনুসারে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা এবং জুভেন্টাসের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল গঠন করে শৃঙ্খলাভঙ্গ জনিত অপরাধ এবং এ বিষয়ে শাস্তি কী হবে সেই প্রক্রিয়া শুরু করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

প্রস্তাবিত ইউরোপিয়ান সুপার লিগ প্রজেক্টে ছিল মোট ১২টি ক্লাব। বাকি ৯টি ক্লাবসহ, যেখানে ছিল ৬টি ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ক্লাবও, প্রস্তাবিত সুপার লিগ প্রজেক্ট নিয়ে একটি ‘ক্লাব কমিটমেন্ট ডিক্লারেশন’ নামে চুক্তিতে স্বাক্ষর করে। যেখানে একসঙ্গে থাকার ঘোষণা দিয়ে অনেকগুলো ধারা যুক্ত করা হয়।

Advertisement

রিয়াল-বার্সা এবং জুভেন্টাস ছাড়া বাকি ৯টি ক্লাব হচ্ছে- ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, চেলসি, টটেনহ্যাম হটস্পার, আর্সেনাল, ইতালির এসি মিলান, ইন্টার মিলান ও স্পেনের অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। প্রজেক্ট ঘোষণা দেয়ার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই প্রবল চাপের মুখে সুপার লিগ থেকে সরে আসার ঘোষণা দেয় এই ৯টি ক্লাব।

রিয়াল-বার্সা এবং জুভেন্টাসের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘প্রতিষ্ঠাতা ক্লাবগুলো সবাই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এবং এখনও হচ্ছে। এখনও তারা নিদারুণ সমস্যার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। অগ্রহণযোগ্য এক তৃতীয় পক্ষ চাপ তৈরি হচ্ছে আমাদের ওপর। বারবার হুমকি দেয়া হচ্ছে, কঠোরভাবে বলা হচ্ছে প্রজেক্ট বন্ধ করে দিতে।’

‘আইনিভাবে এটা মেনে নেওয়া যায় না, ট্রাইবুনাল যেখানে ইতোমধ্যে সুপার লিগের পক্ষে রায় দিয়েছে। ফিফা ও উয়েফাকে সরাসরি বা এর অনুমোদিত সংগঠনগুলোর মাধ্যমে এর (সুপার লিগের) বিরুদ্ধে কোনোরকম ব্যবস্থা নেওয়া থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে, যতদিন পর্যন্ত মামলার নিষ্পত্তি না হয়।’

গত ১৮ এপ্রিল সুপার লিগ আবির্ভাবের দুই দিন পরই অনেক আলোচিত-সমালোচিত এই টুর্নামেন্টের পক্ষে মত দেয় স্পেনের একটি বাণিজ্যিক আদালত। রায়ে বলা হয়, ফিফা ও উয়েফা ইউরোপের শীর্ষস্থানীয় ১২টি ক্লাবের সুপার লিগ গঠন রোধ করতে পারে না।

Advertisement

৯টি ক্লাব সরে দাঁড়ানোর পর সাময়িকভাবে সুপার লিগ স্থগিত ঘোষণা করেন রিয়াল মাদ্রিদ সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ। তবে তিনি জানিয়ে দেন, পরিকল্পনা থেকে সরে আসছেন না তারা। ১২টি ক্লাবকে নিয়ে এই লিগ আয়োজন করার উদ্দেশ্য হলো ফুটবল ক্লাব এবং ফুটবলারদের বর্তমান নড়বড়ে অবস্থার উন্নয়ন ঘটানো।

৯টি ক্লাব সরে দাঁড়ালেও বার্সেলোনা, রিয়াল মাদ্রিদ এবং জুভেন্টাস এই পরিকল্পনা সরতে নারাজ। তারা প্রয়োজনে ফরম্যাট পরিবর্তন করে ফেলবে। যদিও প্রকল্প বন্ধ করে দেওয়াটা ‘অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন’ এর মতো কাজ হবে বলে মনে করে তারা। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘সুপার লিগের উদ্যোগে যে নানারকম প্রতিক্রিয়া আসছে, সেগুলো সম্পর্কে আমরা সচেতন। এর মধ্যে কিছু বিষয়ের পেছনে কারণেও আলোকপাত করা যেতে পারে।’

আইএইচএস/