দেশজুড়ে

ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’র প্রভাবে সন্ধ্যা থেকে উপকূলে বৃষ্টি

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’-এর প্রভাবে সাতক্ষীরার উপকূলীয় এলাকায় রোববার সকাল থেকেই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছিলো। বিকেলের দিকে রোদের দেখা মিললেও সন্ধ্যা নামতেই আবারও বৃষ্টি শুরু হয়েছে।

Advertisement

এছাড়া রাতের জোয়ারে উপকূলে খোলপেটুয়া ও কপোতাক্ষ নদীতে এক থেকে দেড় ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছিল। তবে এখন ভাটি শুরু হয়েছে।

জেলার শ্যামনগরে নীলডুমুর খেয়াঘাট এলাকার বাসিন্দা হুদা মালি জানান, সকাল থেকে থেমে থেমে কয়েক দফা বৃষ্টি হয়েছে। তবে বিকেলে রোদ ছিল। রাতের জোয়ারে নদীতে পানি কিছুটা বেড়েছিল। এখন আবার ভাটি শুরু হয়েছে।

আশাশুনির প্রতাপনগরের বাসিন্দা ইদ্রিস আলী জানান, আকাশ মেঘলা রয়েছে। কয়েক দফা ভারী বৃষ্টি হলেও বিকেলে রোদের দেখা মিলেছে। তবে সন্ধ্যা থেকে আবার তার এলাকায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে।

Advertisement

তিনি বলেন, ‘কপোতাক্ষ নদীর পানি জোয়ারে কিছুটা বেড়েছিল। এখন ভাটি শুরু হয়েছে। ঝড়ের সময় ভাটি থাকলে আমাদের এলাকায় বেড়িবাঁধ ভাঙার ভয় থাকে না। এখন আমরা অনেকটা নিরাপদ। তবে ভোররাতে জোয়ারে পানি বৃদ্ধি পেলে ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে।’

সাতক্ষীরা আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা জুলফিকার আলী রিপন বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় গুলাব বাংলাদেশের উপকূলে সরাসরি আঘাত হানবে না। গতিপথ অনুযায়ী এ ঘূর্ণিঝড়ে বাংলাদেশে ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা নেই।’

তিনি বলেন, ‘তবে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ ক্রমান্বয়ে আরও একটি নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। এর প্রভাবে সোমবার থেকে দুই-তিনদিন হালকা ও মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে।’

আহসানুর রহমান রাজীব/এএএইচ

Advertisement