আন্তর্জাতিক

বৈরুতের ঘটনায় হিজবুল্লাহর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান

লেবাননের বৈরুতে বিক্ষোভে সাত জন নিহত ও ৩০ জনের মতো আহত হওয়ার ঘটনায় হিজবুল্লাহর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন দেশটির ডানপন্থি দল ক্রিশ্চিয়ান লেবানিজ ফোর্সেস পার্টির প্রধান। স্থানীয় সময় শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) তিনি বলেন, ঘটনার আগের দিনের বৈঠকটি ছিল পুরোপুরি রাজনৈতিক। খবর রয়টার্সের।

Advertisement

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) কালো পোশাকে শত শত হিজবুল্লাহর সমর্থক বৈরুত জাস্টিস প্যালেসে সমবেত হন। লেবাননের রাজনৈতিক দল আমাল মুভমেন্টের সদস্যরাও বিক্ষোভে অংশ নেন। বিক্ষোভ চলাকালীন এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ শুরু হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন সাতজন। আহত হন আরও অন্তত ৩২ জন। বিক্ষোভ সমাবেশে সহিংসতার ঘটনায় ডানপন্থি দলকে দায়ী করেন হিজবুল্লাহ নেতারা।

এদিকে, এ ঘটনায় দেশটির সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, এখন পর্যন্ত ৯ জনকে আটক করা হয়েছে।

অপরদিকে, সহিংসতায় সাতজন নিহত হওয়ার ঘটনায় দেশের জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী নাজিব মিকাতি। নিহতদের স্মরণে শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) শোক দিবসও পালন করেছে লেবানিজ সরকার।

Advertisement

বৈরুত বন্দরে ২০২০ সালের ৪ আগস্ট বিস্ফোরণে ২১৯ জন নিহত ও কয়েকশ মানুষ আহত হওয়ার ঘটনার তদন্ত কার্যক্রম থেকে বিচারপতি তারেক বিতারকে সরিয়ে দেওয়ার আহ্বান জানাতেই মূলত বিক্ষোভ করেন তারা। বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ বিচারপতি পক্ষপাতিত্ব করছেন এবং তিনি ‘যুক্তরাষ্ট্রের চাকর’।

তারেক বিতার বৈরুত ক্রিমিনাল কোর্টের প্রধান বিচারক। তিনি বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত দ্বিতীয় কর্মকর্তা হিসেবে আছেন। এর আগে সাবেক দুই মন্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়ায় প্রথম তদন্ত কর্মকর্তা অপসারিত হন।

এসএনআর/এএসএম

Advertisement