খেলাধুলা

তবুও মুশফিকে আস্থা রিয়াদের

তামিম-সাকিবকেও পিছিয়ে রাখার কোনই সুযোগ নেই। এ দু’জনার ব্যাট টিম বাংলাদেশের অনেক বড় শক্তি ও সম্পদ। তবে নির্ভরযোগ্যতা ও বিশ্বস্ততায় তামিম-সাকিবের চেয়েও তাকে ধরা হয় এক নম্বর। তাইতো তার নাম হয়েছে ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল।’ মুশফিকুর রহিমই হলেন বাংলাদেশের ব্যাটিং নির্ভরতার প্রতীক।

Advertisement

টেস্ট আর ওয়ানডেতে দলের সংকটে, বিপদে আর প্রয়োজনে যতবার মুশফিকের ব্যাট জ্বলে উঠেছে আর কারো ব্যাট তেমন জ্বলে ওঠেনি। তাই মুশফিকই বিপদে সবচেয়ে বড় বন্ধু।

কিন্তু কঠিন সত্য হলো সেই নির্ভরতার প্রতীক কিছুদিন ধরে নিজেকে খুঁজে পাচ্ছেন না। বিশেষ করে, টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে একদমই রান নেই তার ব্যাটে। শেষ ৮ ইনিংসে (৪, ০, ১৭, ১৬, ০, ২০*, ০, ৩) তার ব্যাট কথা বলছে না একদমই। সাকুল্যে করেছেন ৬০ রান। সর্বোচ্চ মোটে ২০। তিনবার আউট হয়েছেন শূন্য রানে।

এবার আবুধাবিতে শ্রীলঙ্কা (১৩) আর আয়ারল্যান্ডের (৪) সাথে প্র্যাকটিস ম্যাচেও মুশফিক কিছুই করতে পারেননি। তারও আগে ওমান ‘এ’ দলের বিপক্ষেও ফিরে গেছেন শূন্য রানে। এমন নির্ভরযোগ্য উইলোবাজের অফফর্ম নিয়ে কম-বেশি সবাই চিন্তিত।

Advertisement

কিন্তু অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ মোটেই চিন্তিত নন। মুশফিকের ওপর তার পুরো আস্থা রয়েছে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব শুরুর আগে মিডিয়ার সাথে কথা বলতে গিয়ে বাংলাদেশ অধিনায়ক জানিয়ে দিলেন, ‘আসলে একটি ভাল ইনিংস দরকার মুশফিকের। তবেই সে নিজেকে ফিরে পাবে।’

মুশফিক সম্পর্কে রিয়াদের আশাবাদী উচ্চারণ, ‘আমরা মুশফিকের ফর্ম নিয়ে মোটেই চিন্তিত নই। সে অবশ্যই ফিরে আসবে।’

রিয়াদের আশা নিজেকে ফিরে পেতে একটি মাত্র ভাল ইনিংস দরকার। আর সম্ভবত সেটা স্কটল্যান্ডের সাথে ম্যাচেই হবে। টাইগার ক্যাপ্টেন যোগ করেন, ‘আমরা সবাই জানি মুশফিকের সামর্থ্য কতটা।’

এআরবি/আইএইচএস

Advertisement