দেশজুড়ে

‘আমি নয়ন বন্ড শফিক রেজা, সারাদিন খাই গাঁজা’

নিজেকে নয়ন বন্ডের ভক্ত দাবি করে বরগুনা সরকারি কলেজ ক্যাম্পাসে প্রকাশ্যে গাঁজা সেবনের ভিডিও ফেসবুকে প্রকাশ করেছেন এক তরুণ।

Advertisement

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) ফেসবুকে ‘বরগুনা সিটি’ নামের একটি পেজে বেলা ১১টার দিকে ভিডিওটি আপলোড করা হয়।

কলেজ চলাকালীন প্রকাশ্যে ক্যাম্পাসে গাঁজা সেবনের এমন ভিডিও আপলোড করেছেন ওই তরুণ। ভিডিওতে ওই তরুণ নিজেকে ‘শফিক বন্ড’ দাবি করে ‘আমি কারো ধার ধারি না...‘ এমন একটি গানও পরিবেশন করেন।

কলেজ ক্যাম্পাসে এমন বখাটেপনার দৃশ্য ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে নিন্দার ঝড় ওঠে।

Advertisement

১ মিনিট ৪৩ সেকেন্ডের ভিডিওতে শেষের দিকে গিয়ে ওই তরুণ নিজের নাম প্রকাশ করে বলেন, ‘আমি কি মামা চিনোছ না, বরগুনা আমার, নয়ন বন্ড ওরফে শফিক রেজা, খাই গাঁজা।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, স্বঘোষিত এই বন্ড শফিক রেজার বাড়ি পাথরঘাটা উপজেলার কালমেঘা ইউনিয়নের কালমেঘা গ্রামে। তার বাবার নাম হারুন, মায়ের নাম রাশেদা বেগম।

শফিকের নানি সুফিয়া বেগম বলেন, মাদকাসক্ত হলেও শফিক কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত নয়।

বরগুনা সরকারি কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী ও সাবেক ছাত্রনেতা জুনায়েদ জুয়েল বলেন, ভিডিওতে দেখলাম সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের কার্যালয়ের ভবনের সামনেই রোভার স্কাউটের পাশের সড়কে গাঁজা সেবন করে অশ্রাব্য ও অশ্লীল বাক্যে র‌্যাপ গাইছে এক মাদকাসক্ত। এটা কি কলেজ কর্তৃপক্ষের নখদর্পণে নেই?

Advertisement

রিফাত শরীফ হত্যার উদাহরণ টেনে এখনই এদের লাগাম টানা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

যোগাযোগ করা হলে বরগুনা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মতিউর রহমান বলেন, বিষয়টি জানার পর আমি বরগুনা সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছি।

বখাটেদের আড্ডা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বখাটে তো দূরে থাক, আইড কার্ড চেক করে কলেজে শিক্ষার্থীদের প্রবেশ করানো হয়। তারপরও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেএম তারিকুল ইসলাম বলেন, অধ্যক্ষ আমাদের সহযোগিতা চাইলে আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সব সহেযাগিতা দিতে প্রস্তুত।

এফএ/এমএস