শিক্ষা

ভিকারুননিসায় পাসের হার ৯৯.৭৮ শতাংশ, ফেল ৫ শিক্ষার্থী

রাজধানীর স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৯৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ। মোট পরীক্ষার্থীদের মধ্যে অকৃতকার্য হয়েছে পাঁচজন।

Advertisement

প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ কামরুন নাহার জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, ভিকারুননিসায় এ বছর বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা এ তিন বিভাগে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২ হাজার ৩০৬ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২ হাজার ৩০১ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ২৫ জন। অকৃতকার্য হয়েছে পাঁচজন। পাসের হার ৯৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

আরও পড়ুন : জিপিএ ৫ পেলো দুই লাখ ৬৯ হাজার শিক্ষার্থী

এদিকে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণার পর বাঁধভাঙা উল্লাসে মেতেছে রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা। ফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে এদিন সকাল থেকেই কলেজ প্রাঙ্গণে আসতে শুরু করে শিক্ষার্থীরা। দুপুরে ফল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে তারা আনন্দে মাতে। তাদের এ উল্লাসে সঙ্গ দিচ্ছেন অভিভাবকরাও।

Advertisement

এ বছর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ফাহমিয়া মকবুল। সে জাগো নিউজকে বলে, বাবা-মা ও শিক্ষকদের অনুপ্রেরণায় ভালো ফলাফল করতে পেরেছি। তবে ফল ঘোষণার আগ পর্যন্ত খুব টেনশন কাজ করছিল। এখন সহপাঠীদের সঙ্গে উল্লাস করছি। খুব ভালো লাগছে।

ফাহমিয়া মকবুলের সঙ্গে এ আনন্দে শামিল হয়েছেন তার মা সেলী হোসেন। তিনি বলেন, ২০২০ সালে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে কলেজে ভর্তি হতে হয়েছে। বিধিনিষেধের কারণে দীর্ঘদিন ক্লাসও হয়নি। অনলাইনে ক্লাস করতে হয়েছে। তবে সব ক্লাসই মনোযোগ দিয়ে করেছে। ফলে মেয়ে ভলো ফলাফল করতে পেরেছে।

তিনি বলেন, করোনার সময় এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষা হয়নি। অটোপাস দেওয়া হয়েছে। গত বছরও সিলেবাস কমিয়ে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে আমরা ডিপ্রেশনে ছিলাম। কারণ, পরীক্ষা ছাড়া মেধার সঠিক মূল্যায়ন হয় না।

আরও পড়ুন : এসএসসি ও সমমানে পাসের হার ৮৭.৪৪ শতাংশ

Advertisement

রাজধানীর স্বনামধন্য এ প্রতিষ্ঠানটির বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে মারজিয়া আক্তার ও সোনিয়া হোসেন। কলেজ প্রাঙ্গণে দুই সহপাঠীর দেখা হতেই দুজন দুজনকে জড়িয়ে ধরে আনন্দ উল্লাস করে। এসময় তাদের সঙ্গে তাদের মা-বাবাকেও উল্লাস করতে দেখা যায়।

মারজিয়া বলে, আজকের আনন্দ বলে বোঝাতে পারবো না। তবে এ ভালো রেজাল্টের পেছনে বাবা-মা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। এ কৃতিত্ব তাদের। শিক্ষকরাও ভালোভাবে পাঠদান করিয়েছেন। যে কারণে কোচিং করতে হয়নি।

ভিকারুন্নেসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহার জাগো নিউজকে বলেন, শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কারণেই আমাদের প্রতিষ্ঠান এবারও ভালো ফলাফল করেছে। তবে করোনার পর অনেক শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে। অনেকে গ্রামের বাড়ি চলে গিয়েছিল, তাদের কারও কারও আর ফেরা হয়নি।

তিনি বলেন, অনলাইনে ক্লাস ও পরীক্ষা হওয়ায় অনেকে ঠিকমতো তা করতে পারেনি। তারপরও এখন যে ফলাফল আমরা পেয়েছি তাতে সন্তুষ্ট। ভবিষ্যতে আরও ভালো করার চেষ্টা করবো।

আরও পড়ুন : ৫০ বিদ্যালয়ে সবাই ফেল, শতভাগ পাস ২৯৭৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে

অধ্যক্ষ কামরুন নাহার আরও জানান, এবার এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ২ হাজার ৪৫ জন পরীক্ষার্থী ছিল। এর মধ্যে পাস করছে ২ হাজার ৪২ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ৯১৯ জন। তিনজন অকৃতকার্য হয়েছে। পাসের হার ৯৯ দশমিক ৮৫ শতাংশ।

মানবিক বিভাগ থেকে ৫৬ জন পরীক্ষার্থী ছিল। এর মধ্যে পাস করেছে ৫৪ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৭ জন। একজন অকৃতকার্য হয়েছে। পাসের হার ৯৮ দশমিক ১৮ শতাংশ।

ব্যবসার শিক্ষা বিভাগে পরীক্ষা অংশ নিয়েছিল ২০৬ জন। পাস করেছে ২০৫ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৯ জন। একজন অকৃতকার্য হয়েছে। পাসের হার ৯৯ দশমিক ৫১ শতাংশ।

এই তিন বিভাগে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২ হাজার ৩০৬ জন। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ করেছে ২ হাজার ৩০১ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ২৫ জন। অকৃতকার্য হয়েছে পাঁচজন। পাসের হার ৯৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে গণভবন থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে চলতি বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৯টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ড, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাবোর্ড মিলে এবার পাসের হার ৮৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ।

এমএমএ/এমকেআর/জেআইএম