সপ্তাহের রসালাপ: সম্রাটের তোতা

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪৮ এএম, ১২ আগস্ট ২০২২

সম্রাট আকবরের সাম্রাজ্যে এক শিকারি বাস করত। সে জঙ্গলে গিয়ে প্রায়ই একটি করে তোতাপাখি ধরে নিয়ে আসে, এরপর কিছুদিন ধরে সেই পাখিটিকে কথা বলা শেখায় এরপর সেই অনেক উঁচু দামে পাখিকে শহরের ধনী লোকেদের কাছে বিক্রি করে দেয়। এভাবেই তার সংসার চলত।

একদিন শিকারে গিয়ে সে একটি সুন্দর তোতাপাখি ধরল। সে বেশ যত্ন করে সেই পাখিটিকে সুন্দর সুন্দর কথা শেখাতে লাগল। অন্য পাখিগুলোর তুলনায় এই পাখিটিকে সে বেশ কয়েকটি সুন্দর সুন্দর শব্দ শেখাল। এরপর সে পাখটিকে নিয়ে সম্রাট আকবরের সভায় উপস্থিত হল।

দরবারে পৌঁছাতেই শিকারি পাখিটিকে প্রশ্ন করলেন- ‘বলোতো তোতা এটা কার দরবার?’

তোতাটি নাকি সুরে উত্তর দিল- এটা সম্রাট আকবরের দরবার।

পাখিটির এই বুলি শুনে আকবর বেশ খুশি হলেন। তিনি শিকারিকে বললেন- ‘আমার এই তোতাটি লাগবে। বলুন এই তোতাটির মূল্য কত?’

শিকারি বললেন, ‘জাঁহাপনা, সব কিছু তো আপনারই, এই গরীবকে যা দিবেন তাতেই এই গরীব খুশি।’ শিকারির এই উত্তর শুনে সম্রাট আকবর বেশ খুশি হলেন এবং উচ্চ মুল্যে তোঁতাটিকে ক্রয় করে নিলেন।

আকবর তোতাটির জন্য একটি সুন্দর থাকার জায়গার ব্যবস্থা করলেন এবং তোতাটি যেন সুরক্ষিত থাকে তার সব বন্দোবস্ত করলেন। সঙ্গে সঙ্গে ঘোষণা করলেন, ‘যদি কেউ এই তোতাটির মৃত্যুর খবর আমার কানে পৌঁছায় তাহলে তাকে সোজা মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে।’ সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে তিনি তোতাটিকে সবাই চোখে চোখে রাখতে বললেন।

তাই সবাই সেই তোতাটির বিশেষ খেয়াল রাখতে লাগলেন। কিন্তু ভাগ্যের এমন নির্মম পরিহাস, দিন দুয়েক পড়েই তোতাটি মারা গেল। সম্রাট আকবরের কানে এই খবরটি পৌঁছালে তিনি আর আস্ত রাখবেন না কাউকেই। কিন্তু এইভাবে তো বেশিদিন রাখাও যাবে না।

তোতাটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে যিনি ছিলেন তিনি বেশ চিন্তায় পড়ে গেলেন। সম্রাটকে তোতাটির মৃত্যুর খবর পৌঁছে দেবে টা কে? কেউই প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে সম্রাটকে তোতার মৃত্যুর খবর দিতে যেতে চাইছে না। কারণ মৃত্যুর খবর নিয়ে গেলেই সোজা মৃত্যুদণ্ড।

তোতার রক্ষকের হঠাৎ মনে হল, বীরবলকে ঘটনাটা বলা যেতে পাড়ে, তিনি যদি কোনো সাহায্য করেন! তোতা রক্ষক বীরবলকে আগা গোঁড়া সব ঘটনা বললেন, সঙ্গে এও বললেন যে, সম্রাট বলে দিয়েছেন যে তোতার মৃত্যুর খবর নিয়ে তার কাছে যাবে তাকে সোজা মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে।

বীরবল কিছুক্ষণ চিন্তা করলেন, ‘এরপর তিনি তোতা রক্ষককে বললেন, ঠিক আছে আমি দেখছি।’

বীরবল আকবরের কাছে গিয়ে বললেন, ‘সম্রাট, আপনার তোতা।’

সম্রাট আকবর উৎসুক হয়ে বললেন, ‘আমার তোতা।’

বীরবল আবার বললেন, ‘সম্রাট আপনার তোতা।’

সম্রাট আকবর,আরে আমার তোঁতা, ‘কি বল বল আমার তোঁতা কি।’

বীরবল, ‘জাঁহাপনা আপনার প্রিয় তোতা।’

সম্রাট আকবর, ‘আরে বীরবল, আমার তোতা কি তাড়াতাড়ি বল।’

বীরবল এবার বলেই ফেললেন, ‘সম্রাট আপনার তোতা কিছু খায় না, আবার কিছু পানও করে না। সে আর তার ডানাগুলোও ঝাঁপটায় না, সে আর মিষ্টি মিষ্টি কথাও বলে না, এমনকি সে চোখ বন্ধ করে আছে তো আছেই সে আর চোখ খোলে না!’

এবার আকবর রেগে গেলেন, ‘তুমি শুধু কথা ঘোরাচ্ছ কেন বীরবল, সোজাভাবে বলতে কি হয় যে, আমার তোতা মারা গেছে।’

বীরবল বললেন, ‘সম্রাট আপনি বলেছিলেন, যে আপনার তোতার মৃত্যু সংবাদ আপনার কাছে নিয়ে আসবে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে। আর আমি আপনাকে তোতার মৃত্যুর খবর দিই নিই। আমি কেবল আপনাকে তার বর্তমান অবস্থার কথা বলেছি। যাতে আমার প্রাণ বেঁচে যায়।’

সম্রাট আকবর বীরবলের কথার কি উত্তর দেবেন, তা আর যেন ভেবে পাচ্ছেন না!

লেখা: সংগৃহীত
ছবি: সংগৃহীত

প্রিয় পাঠক, আপনিও অংশ নিতে পারেন আমাদের এ আয়োজনে। আপনার মজার (রম্য) গল্পটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়। লেখা মনোনীত হলেই যে কোনো শুক্রবার প্রকাশিত হবে।

কেএসকে/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।