Jago News logo
Banglalink
ঢাকা, বুধবার, ২৮ জুন ২০১৭ | ১৪ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

তিন ঘণ্টায় ৫০০ কেজি ধান শুকানোর যন্ত্র উদ্ভাবন


বাকৃবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১০:০১ পিএম, ২০ মার্চ ২০১৭, সোমবার | আপডেট: ১১:৪৬ এএম, ২১ মার্চ ২০১৭, মঙ্গলবার
তিন ঘণ্টায় ৫০০ কেজি ধান শুকানোর যন্ত্র উদ্ভাবন

বর্তমানে দেশে প্রায় ৫৫.৫ মিলিয়ন টন ধান উৎপাদন হচ্ছে। উৎপাদিত ধানের বেশির ভাগই শুকানো হয় রোদে। এতে ধানকে চাল এবং চালকে ভাত করে খাবার টেবিলে পৌঁছাতে প্রায় ১৩ ভাগ ধানের অপচয় হয়। এছাড়াও বৃষ্টি বা মেঘলা দিনে ধান শুকানো কষ্টকর ও সময় সাপেক্ষ হয়ে দাঁড়ায়।

এ সমস্যা নিরসনের জন্য বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) একদল গবেষক উদ্ভাবন করেছেন বিএইউ-এসটিআর ড্রায়ার (ধান শুকানো যন্ত্র)। এ যন্ত্রের সাহায্যে স্বল্প সময় ও খরচে ধান শুকানো যাবে।

ধান শুকানোর যন্ত্রটি উদ্ভাবন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগের গবেষক অধ্যাপক ড. চয়ন কুমার সাহা ও তার গবেষক দল এবং গবেষণা প্রকল্পের ইন-কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর ছিলেন অধ্যাপক ড. মঞ্জুরুল আলম।

যন্ত্রটি সম্পর্কে প্রকল্পের প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. চয়ন কুমার সাহা বলেন, এ ড্রায়ারটি (শুকোনোর যন্ত্র) ব্লোয়ার, ভেতরের ও বাইরের খাঁচা, গরম বাতাস পরিবহন পাইপ এবং চুলার সমন্বয়ে গঠিত। দেশের কয়েকটি চাতাল মিলে এ ড্রায়ার পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। তাতে দেখা যায় যে এ ড্রায়ারে মাত্র ৩ থেকে ৫ ঘণ্টায় ৫০০ কেজি ধান শুকানো যায়। এতে ধান বীজের অঙ্কুরোদগম ক্ষমতাও প্রায় ৯০ ভাগ বজায় থাকে এবং চালের গুণগত মানও নিশ্চিত হয়। মাত্র দুজন লোক দিয়েই যন্ত্রটি পরিচালনা করা সম্ভব।

যন্ত্রের প্রধান উদ্দেশ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, যন্ত্রটি দিয়ে কম সময়ে ও স্বল্প খরচে ধান শুকানো সম্ভব। এর মাধ্যমে ধানের আর্দ্রতা কমিয়ে উন্নত মানের চাল এবং বীজ বাজারজাতকরণ করা যায়। এছাড়া ফলনোত্তর অপচয় এবং শ্রম ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমানো সম্ভব।

BAU

তিনি আরও বলেন, ২০১৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগ ইউএসএইড-ইউএসএ এবং ফিড দ্য ফিউচারের আওতায় ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়েজ কানসাস স্টেট ইউনিভার্সিটির সহযোগিতায় গবেষণা শুরু করে। এতে সাফল্য আসে ২০১৬ সালের মাঝামাঝিতে। যন্ত্রের নামকরণ করা হয় বিএইউ-এসটিআর ড্রায়ার।

এই উদ্ভাবনী যন্ত্রের দাম ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা। তবে এতে ধান শুকানোর খরচ অনেক কম। একটি ড্রায়ারে প্রতিদিন ১ টন ধান শুকানো যায়। রাইস হাস্ক ব্রিকেট বা চারকোল (কয়েল খড়ি) এবং বিদ্যুৎ অথবা ডিজেল ইঞ্জিন দ্বারা চালিত হয় যন্ত্রটি। সারাদেশে এটি ছড়িয়ে দিলে কৃষকরা যেমন ন্যায্যমূল্য পাবেন, সেই সঙ্গে অনেক অপচয় রোধ হবে।

প্রকল্পের ইন-কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক ড. মঞ্জুরুল আলম জানান, রোদে যদি ধান শুকাতে এক টাকা খরচ হয়, তাহলে এই যন্ত্রের সাহায্যে শুকাতে ৮৭ পয়সা লাগবে। এতে করে সময় ও শ্রম দুটিই সাশ্রয় হচ্ছে। এছাড়া তাপ উৎপাদনের জন্য কয়েল খড়ি ব্যবহার হয় বিধায় কোন রকম ধোঁয়া হয় না। ফলে অর্থনৈতিকভাবে এবং পরিবেশের জন্য এই ড্রায়ার কার্যকরী ভূমিকা রাখবে।

মো. শাহীন সরদার/এমএএস/আরআইপি

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Jagojobs