জাবিতে হিজড়াদের অন্যরকম ভালোবাসা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১০:৩৯ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ১০:৪৯ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে মেহেদির রঙে রাঙিয়ে ভিন্নরকম ভালোবাসা দিবস উদযাপন করেছে হিজড়া সম্প্রদায়ের মানুষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের হাত রাঙিয়ে তারা তাদের ভালোবাসা সবার মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে তারা দিবসটি উদযাপন করেন। ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে অন্যরকম এ আয়োজনে এদিন সকাল থেকেই স্বতঃস্ফ‚র্ত অংশ নিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মহুয়াতলায় আয়োজনটির উদ্বোধন ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিকী অনুষদের ডিন অধ্যাপক মোজাম্মেল হক। নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক রেজওয়ানা করিম স্নিগ্ধার সঞ্চালনায় তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের শুভেচ্ছা ও একাত্মতা ঘোষণা করে কথা বলেন বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকরা।

ll

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের হাতে মেহেদি লাগানোর এক ফাঁকে হিজড়া সম্প্রদায়ের সদস্য শাম্মী হোসাইনের বলেন, 'দেখুন আমরাও কিন্তু আপনাদের মতোই মানুষ। আপনাদের মতোই সমস্ত প্রয়োজনীয়তা, অনুভূতি আমাদের আছে। কিন্তু আমরা পরিবার-পরিজন, বাবা-মা, সমাজ, রাষ্ট্র সবকিছু থেকেই বিচ্ছিন্ন। যে ভালোবাসা ছাড়া কোনো মানুষ বাঁচতে পারে না, তা থেকেও আমরা বঞ্চিত। আমাদেরও তো ভালোবাসা পেতে মন চায়।’

তিনি আরও বলেন,‘আজ বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা এ আয়োজন করেছি কারণ এখানের শিক্ষার্থীরাই এক সময় দেশের বড় বড় জায়গায় যাবেন। তখন আমাদের সম্পর্কে তাদের যেন কোনো ভুল ধারণা না থাকে।’

ll

আয়োজনের উদ্বোধন ঘোষণা করে অধ্যাপক মোজাম্মেল হক বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে এ রকম একটি উৎসবের আয়োজন করা যাবে কখনো ভাবিনি। যখনই প্রস্তাব পেয়েছি, স্বানন্দে গ্রহণ করেছি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা খুবই ভালো, তারা আপনাদেরকে ভালোভাবে গ্রহণ করবে। আপনারা কখনো নিজেদেরকে আলাদা ভাববেন না। আপনারা আমাদের এই সমাজেরই অংশ।’

এসময় আরো বক্তব্য দেন উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ফিরোজা হোসেন, অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মোহম্মদ, ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক এ টি এম আতিকুর রহমান, নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মানস চৌধুরী, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক শামীমা সুলতানা লাকি, দর্শন বিভাগের অধ্যাপক এ এস এম আনোয়ারুল্লাহ ভূঁইয়া, সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ নিজার আলম, নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আনন জামান, ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক পিংকী সাহা ও পারভিন জলি প্রমুখ।

ll

দুপুর ২টা পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের হাতে মেহেদি লাগিয়ে দেন হিজড়া সম্প্রদায়ের এ মানুষরা। বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিতে যেন হিজড়াদের জন্য কোটা রাখা হয় শিক্ষকদের প্রতি সে আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

হাফিজুর রহমান/বিএ

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com

আপনার মতামত লিখুন :