পাঙ্গাস ও তেলাপিয়ার সম্ভাবনা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৮ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৮

পাঙ্গাস ও তেলাপিয়া চাষে কম শ্রমিক ও কম খরচ প্রয়োজন হয়। বর্তমানে আমাদের দেশে চার লক্ষ টন পাঙ্গাস ও তিন লক্ষ টন তেলাপিয়া উৎপাদন হচ্ছে। প্রজাতি দুটির সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে সুস্বাদু ও পুষ্টিমান ঠিক রেখে আমরা দেশে চাহিদা সৃষ্টি করতে এবং বিদেশে রফতানি করতে পারি। চিংড়ির পরেই প্রজাতি দুটির বিদেশে রফতানির জন্য অনেক সম্ভাবনা রয়েছে।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) পাঙ্গাস ও তেলাপিয়া মাছের আধুনিকায়ন বিষয়ক দিনব্যাপী কর্মশালায় এসব কথা বলেন বক্তারা। কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদীয় সভাকক্ষে কর্মশালার আয়োজন করা হয়। ডেনিস ইন্টারন্যাশন্যাল ডিভিলোপমেন্ট এজেন্সির (ড্যানিডা) অর্থায়নে ওই কর্মশালা আয়োজন করে ব্যাং-ফিসের ওর্য়াক প্যাকেজ-৩।

ব্যাংফিস ওর্য়াক প্যাকেজ-৩ এর কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর প্রফেসর বদিউজ্জামানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বাকৃবি প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মো. জসিমউদ্দিন খান।

অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে এমিরিটাস অধ্যাপক ড. এম.এ. সাত্তার মন্ডল, বিশেষ অতিথি হিসেবে কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সবুর উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় প্রধান, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্বািবদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্যাংফিসের ওর্য়াক প্যাকেজ-৩ এর টিম লিডার অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামন খান।

উল্লেখ্য, ড্যানিডার অর্থায়নে বাংলাদেশে পাঙ্গাস ও তেলাপিয়া মাছের আধুনিকায়নের জন্য পাঁচ বছর মেয়াদী প্রকল্পের অংশ এটি। এর পূর্বে এ বিষয়ে আরও দুটি কর্মশালা আয়োজন করা হয়। এই প্রকল্পের আওতায় ১২ জন শিক্ষার্থীকে স্নাতকোত্তর ও ৬ শিক্ষার্থীকে পিএইচডি ডিগ্রি প্রদান করা হবে।

শাহীন সরদার/এমএএস/আরআইপি

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com

আপনার মতামত লিখুন :