প্রাণ ক্র্যাকোর সহযোগিতায় ইস্ট ওয়েস্টে ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০৮ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হলো ‘ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি উইন্টার স্ম্যাশ-২০১৯’। প্রাণ ফুডস লিমিটেডের স্ন্যাকস ব্র্যান্ড ‘ক্র্যাকো’-এর পৃষ্ঠপোষকতায় বৃহস্পতিবার ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসে টানা চার দিনব্যাপী এ ব্যাডমিন্টন টুনার্মেন্টের উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য ড. মোহাম্মদ ফরাউদ্দিন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. ফরাস উদ্দিন বলেন, প্রতি বছর আমি এ অনুষ্ঠানের অপেক্ষায় থাকি। এটি যেন গ্রীষ্মের একটি বড় আয়োজন। এ আয়োজনের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে একটি টানটান উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। দেশের বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। জাতীয় পর্যায়ের খেলোয়াড়রাও এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

তিনি আরও বলেন, প্রাণ কোম্পানির সার্বিক সহযোগিতায় গত কয়েক বছর ধরে এ আয়োজন করা হচ্ছে। প্রাণ-এর সহায়তা পাওয়ায় আমাদের পক্ষে এমন আয়োজন করা সম্ভব হচ্ছে। প্রাণ কোম্পানির এমন অবদানে আমরা তাদের কাছে দায়বদ্ধ স্বীকার করছি। ভবিষ্যতেও প্রাণ কোম্পানিকে পাশে পাব বলে আশা করছি।

East-Wes-2

অনুষ্ঠানে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক (বিপণন) চৌধুরী কামরুজ্জামান কামাল বলেন, গত চার বছর ধরে আমরা ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়ে জাতীয় পর্যায়ের ব্যাডমিন্টন টুনার্মেন্টের আয়োজন করে আসছি। তবে এ প্রতিযোগিতা শুধু জাতীয় পর্যায়ে নয়, আন্তর্জাতিক পর্যায়েও আয়োজন করা প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, প্রাণ একটি আঞ্চলিক প্রতিষ্ঠান। আমরা এমন আয়োজনের সঙ্গে থাকতে পেরে আনন্দিত। ভবিষ্যতেও এ ধরনের প্রতিযোগিতার সঙ্গে যুক্ত থাকব।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক এম এম শহীদুল হাসান বলেন, শুধু লেখাপড়া নয়, আমরা বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলার আয়োজন করে থাকি। আমাদের সন্তানরা যেন আর্দশ মানুষ হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হতে পারে। প্রাণ কোম্পানির সহায়তায় আমরা এমন সুন্দর একটি আয়োজন করতে পারায় প্রাণ ও ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় একাত্মতা হয়ে গেছে। প্রাণ কোম্পানির সকলের কাছে কতৃজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

East-Wes-3

চার দিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতায় দেশের সরকারি ও বেসরকারি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ৩৫টি দল অংশগ্রহণ করছে। তার মধ্যে কলেজ পর্যায়ে ১০টি ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ২৫টি দল রয়েছে।

প্রতিযোগিতা শেষে সমাপনী অনুষ্ঠানে ছয়টি পর্যায়ে পুরস্কার প্রদান করা হবে। এর মধ্যে বয়েজ সিঙ্গেল, বয়েজ ডাবল, গার্লস সিঙ্গেল, গার্লস ডাবল, ফ্যাকাল্টি এডমিন ডাবল পর্যায়ে পুরস্কার প্রদান করা হবে। বিজয়ীদের হাতে ট্রফি, মেডেল ও সম্মানি হিসেবে ১৫ হাজার টাকার ও রানার্সআপকে ১০ টাকার প্রাইজবন্ড দেয়া হবে।

এমএইচএম/আরএস/পিআর

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com

আপনার মতামত লিখুন :