নকলে বাধা : শিক্ষকের ওপর হামলার বিচার দাবিতে ঢাকা কলেজে প্রতিবাদ

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৩৯ পিএম, ১৬ মে ২০১৯

পরীক্ষার হলে নকলের সুযোগ না দেয়ায় পাবনার সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজে বাংলা বিভাগের প্রভাষক মো. মাসুদুর রহমানের ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে প্রতিবাদ সভা করেছে ঢাকা কলেজ শিক্ষক পরিষদ।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দুপুর ২টায় ঢাকা কলেজ অডিটরিয়ামে এই প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নেহাল আহমেদ।

প্রতিবাদ সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা কলেজ শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও অর্থনীতি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর শামীম আরা বেগম, প্রফেসর আবু তাহের পাটোয়ারি, প্রফেসর এ কে এম ইলিয়াছ, প্রফেসর আমিরুল ইসলাম পলাশ, ফারজানা সুলতানা, ড. কুদ্দুস সিকদার, সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, মো. নাছির উদ্দিন, ওবায়দুল করিম প্রমুখ।

সভায় বক্তারা অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেফতার করে যথাযথ শাস্তি প্রদানের দাবি জানান এবং যে শিক্ষার্থীকে অবৈধ সুযোগ না দেয়ায় এ ঘটনার সূত্রপাত ওই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক ব্যবস্থা গ্রহণ ও ঘটনা তদন্ত করে অধ্যক্ষ মহোদয়ের কোনো ব্যর্থতা থাকলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

DC-2

প্রতিবাদ সভা থেকে এমন ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেজন্য সারাদেশের শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে ঐক্যবদ্ধভাবে তীব্র প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত ৬ মে সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজের ১০৬ নং কক্ষে এইচএসসি উচ্চতর গণিত পরীক্ষা চলাকালে পাবনা সরকারি মহিলা কলেজের দুইজন ছাত্রী দেখাদেখি করছিলেন। এ সময় ওই কক্ষের পরিদর্শক সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজের প্রভাষক মাকসুদুর রহমান তাদেরকে নিবৃত্ত করতে না পেরে একপর্যায়ে খাতা কেড়ে নেন। এ ঘটনার জের ধরে গত ১২ মে দুপুর পৌনে ২টার দিকে ওই শিক্ষক কলেজ থেকে মোটরসাইকেলযোগে বাসায় যাওয়ার সময় কলেজ গেটের সামনেই তাকে কিল-ঘুষি-লাথিসহ বেদম মারপিট করো হয়। ভুক্তভোগী শিক্ষক এ ঘটনার জন্য ছাত্রলীগের একজন নেতাকে দায়ী করেন।

এ ঘটনায় বুধবার (১৫ মে) রাতে ওই কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল কুদ্দুস বাদী হয়ে সজল ইসলাম ও সাফিনসহ অজ্ঞাতনামা ৩-৪ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

এদিকে মামলার পর বৃহস্পতিবার (১৬ মে) ভোরে অভিযান চালিয়ে এজাহারভুক্ত সজল ও সাফিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে সজল ইসলাম কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্র ও সাফিন ওই কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

এমবিআর/এমকেএইচ

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]