জাবি উপাচার্যের পক্ষে-বিপক্ষে শিক্ষকদের বিবৃতি, কাল ফের আন্দোলন

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১১:১৩ পিএম, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে ‘অর্থলোলুপ’ আখ্যা দিয়ে তার পদত্যাগ দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’।

অন্যদিকে উপাচার্যের বিরুদ্ধে এই অভিযোগকে মিথ্যাচার ও ষড়যন্ত্রমূলক বলে দাবি করছে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’। দুর্নীতির অভিযোগে উপাচার্যের বিরুদ্ধে রোববার বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

উপাচার্য ফারজানা ইসলাম প্রকল্পের টাকা থেকে কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগকে দুই কোটি টাকা ভাগ-বাটোয়ারা করে দিয়েছেন- এমন খবর গণমাধ্যমে প্রকাশের পর তিন দফা দাবিতে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনে নামেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একাংশ।

আন্দোলনের চাপে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। আলোচনায় তিনটি দাবির মধ্যে দুটি দাবি মেনে নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

তবে ধারাবাহিক এই আন্দোলনে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি না করলেও এবার দুর্নীতির অভিযোগ তুলে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করেছেন বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের শিক্ষকরা।

শনিবার এক বিবৃতিতে শিক্ষকরা বলেন, ‘উপাচার্য ও তার পরিবারের সদস্যদের তত্ত্বাবধানে ‘অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পে’র টাকা ভাগাভাগির সংবাদ এখন সারা দেশের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা লুটপাটের ঘটনায় দেশের প্রথম নারী উপাচার্যের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে অনেকের মনে কিঞ্চিৎ সংশয় থাকলেও, প্রধানমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চেয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ‘খোলা চিঠি’ নিশ্চিত বিশ্বাসের জন্ম দিয়েছে। এমতাবস্থায় দুর্নীতিগ্রস্ত এই উপাচার্যের আর স্বপদে থাকার নৈতিক অধিকার নেই।’

অন্যদিকে উপাচার্যের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগকে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক দাবি করে বিবৃতি দিয়েছে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, ‘দুর্নীতির অভিযোগের মতো কল্পিত কাহিনী প্রচার করে উপাচার্যের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। এতে উপাচার্যের সুনামহানি ও মানহানি করা হচ্ছে। যারা এ ধরনের অপপ্রচার করছেন তাদেরকেই দুর্নীতির বিষয়টি প্রমাণ করতে হবে।’

বিবৃতিতে উপাচার্যের বিরুদ্ধে এ ধরনের মিথ্যা প্রচারণা চালানো থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়।

শনিবার দুপুর বারোটায় নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে জাবি উপাচার্য ফারজানা ইসলাম বলেন, তার বিরুদ্ধে ছাত্রলীগকে টাকা দেয়ার অভিযোগ মিথ্যা এবং কল্পিত গল্প।

আর উপাচার্যের এমন বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল করবে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনকারীরা বলছেন, শোভন-রাব্বানীর বক্তব্যে প্রমাণ হয় যে, দুর্নীতি হয়েছে। আর যদি দুর্নীতি যদি না হয়ে থাকে তাহলে শোভন-রাব্বানীরও আইনত বিচার হতে হবে। উপাচার্যকে এ বিষয়টি পরিষ্কার করতে হবে।

ফারুক হোসেন/এমএসএইচ

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]