অর্গানোগ্রাম জটিলতা নিরসনে মহাপরিচালকের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের বৈঠক

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৮:২৩ এএম, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও মৎস্য অধিদফতরের পর কয়েক দফায় অর্গানোগ্রাম বাস্তবায়ন হলেও দেশের প্রাণিসম্পদ অধিদফতরে দীর্ঘদিন যাবৎ নতুন কোনো অর্গানোগ্রাম বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছিল না। অনেকেই এর অন্যতম কারণ হিসেবে চিহ্নিত করছেন প্রাণিসম্পদ খাতের কর্তাব্যক্তিদের অন্তর্কোন্দলকে। তবে সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের একটি অর্গানোগ্রাম পাস হয়েছে। পাসকৃত এ অর্গানোগ্রাম নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাই অর্গানোগ্রাম বানচালের সকল ষড়যন্ত্র রোধে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. হীরেশ রঞ্জন ভৌমিকের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের প্রাণী স্বাস্থ্য ও প্রশাসন বিভাগের পরিচালক ডা. মো. আব্দুল জব্বার মোল্লা, উপ-পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. হাসান ইমাম, বাংলাদেশ ভেটেরিনারি অ্যাসোসিয়েশনের (বিভিএ) মহাসচিব ড. মো. হাবিবুর রহমান মোল্লা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

SAU

বৈঠকে বক্তারা বলেন, অনেক প্রচেষ্টার পর এ অর্গানোগ্রাম আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে। কিছুসংখ্যক ব্যক্তি নিজ স্বার্থকে কেন্দ্র করে এ অর্গানোগ্রাম বানচাল করতে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। প্রয়োজন হলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াব। এই অর্গানোগ্রামে আমাদের প্রত্যাশার পূর্ণ প্রতিফলন ঘটেনি। তবুও আমরা চাই এটি বাস্তবায়ন হোক, যা মন্দের ভালো। আমাদের উচিত এ অর্গানোগ্রাম বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা এবং পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় পদ সৃষ্টি ও লোকবল নিয়োগের জন্য এগিয়ে আসা।

প্রাণিসম্পদ খাতের কর্তাব্যক্তিদের অনেকেই মনে করেন, বিদ্যমান ডিভিএম (ডক্টর অব ভেটেরিনারি মেডিসিন) ও এএইচ (অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি) ডিগ্রিকে আলাদা না রেখে সমন্বিত ডিগ্রি (বিএসসি ইন ভেটেরিনারি সায়েন্স অ্যান্ড অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি বা অনুরূপ কোনো নামে) চালু করলে এই সমস্যা থাকবে না। দেশের দুইটি বিশ্ববিদ্যালয় ব্যতীত বাকিগুলোতে সমন্বিত কোর্স-কারিকুলাম চালু আছে। এই দুই ডিগ্রিধারীদের পারস্পরিক স্বার্থ নিয়ে অন্তর্কোন্দলের কারণেই এত সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। অথচ এরা সকলেই একই পরিবারের সদস্য।

SAU

বৈঠকে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গণ বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

মো. রাকিব খান/এসআর/পিআর

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]