২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভিসি নাসির উদ্দীনের অপসারণ দাবি

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:২১ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

গোপালগঞ্জে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুশেমুরবিপ্রবি) বিতর্কিত উপাচার্য খন্দকার নাসির উদ্দীনকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অপসারণের দাবি করছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

বুশেমুরবিপ্রবি-র ডেইলি সানের ক্যাম্পাস প্রতিনিধি ফাতেমা তুজ জিনিয়ার বহিষ্কারাদেশ বাতিল করে ছাত্রত্ব ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এক মানববন্ধনে তারা এ দাবি করেন।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আহ্বায়ক আ ক ম জামাল উদ্দিন বলেন, বুশেমুরবিপ্রবির উপাচার্য খন্দকার নাসির উদ্দীন যে ধরনের স্বেচ্ছাচারী ও স্বৈরাচারী মনোভাব নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয় চালাচ্ছেন। তারই প্রমাণস্বরূপ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় বিস্তার অভিযোগ এসেছে, এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন আমরা জানি না ঘুমিয়ে আছে কি না। এই ভিসি ফাতেমা তুজ-জিনিয়া নামে এক শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেছে। আর এর কারণ ছিল সে শুধু ফেসবুকে লিখেছিল- বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাজ কী। এরও আগে আরও পাঁচ শিক্ষার্থীকে অবৈধভাবে বহিষ্কার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, এই ভিসি স্বাধীনতার সময় স্বাধীনতাবিরোধী সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। শুধু আত্মীয়তার কারণে স্বাধীনতাবিরোধী একজন লোক কোনো বিশ্ববিদবিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হতে পারেন না। তাই যদি আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কুলাঙ্গার নাসির উদ্দিনকে অপসারণ করা না হয়, আমরা গোপালগঞ্জে গিয়ে তার প্রশাসনকে ঘেরাও করবো। আর আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় যদি তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করে, তাহলে আমরা কালকে ভিসি খন্দকার নাসির উদ্দিনের কুশপুত্তলিকা পোড়াব এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করব।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, খন্দকার মোশতাকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন বশেমুরবিপ্রবি উপাচার্য। খন্দকার মোশতাক যেমন বঙ্গবন্ধুর খুব কাছে থেকে তার সঙ্গে বেঈমানি করেছিল তেমনি খন্দকার নাসির উদ্দীন বঙ্গবন্ধুর নামে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হয়ে তার আদর্শের সঙ্গে বেঈমানি করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক আল মামুন বলেন, গোপালগঞ্জ হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর নিজ জায়গা। এখানে বঙ্গবন্ধুর নামে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে অগণতান্ত্রিকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু যেখানে সারাজীবন এ দেশের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন করে গেছেন, সেখানে একজন ভিসি কীভাবে একজন শিক্ষার্থীকে শুধু তার মতামত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করেছেন। আমরা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এ স্বৈরাচার ভিসির পদত্যাগ চাই।

মানববন্ধনে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ঢাকা বিশ্ববিদ্যাল, ঢাকা মহানগর, ইডেন কলেজসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জেডএ/জেআইএম

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]