চবিতে ছাত্রলীগের বগিভিত্তিক প্রচারণাতে নিষেধাজ্ঞা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৬:৩২ পিএম, ২২ অক্টোবর ২০১৯

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ছাত্রলীগের শাটল ট্রেনের বগি রাজনীতির নিষিদ্ধের পর এবার বগিভিত্তিক গ্রুপগুলোর প্রচারণাতেও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। আসন্ন ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের বগিভিত্তিক গ্রুপগুলো দেয়ালে চিকামারা ও স্ব স্ব গ্রুপগুলো প্রচারণা চালানো শুরু করে। ছাত্রলীগের শাখা কমিটি থাকা এবং বগি রাজনীতি নিষিদ্ধের পরেও এমন প্রচারণায় ক্ষুব্ধ হয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করে কেন্দ্রীয় কমিটি।

মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক মো. আহসান হাবীব স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগে বগিভিত্তিক বিভিন্ন গ্রুপের নামে চিকামারা, টি-শার্ট, প্ল্যাকার্ড, স্লোগান সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এ আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক মো. আহসান হাবীব জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় বগি নিয়ে রাজনীতি নিষিদ্ধ। এরপরও বিভিন্ন গ্রুপের চিকা, স্লোগান, টি-শার্ট ও প্ল্যাকার্ড বহন করে থাকে। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের অনুমতিক্রমে এ ধরনের কার্যক্রম সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হলো।

তিনি আরও বলেন, ছাত্রলীগ একটাই সংগঠন। কেউ যদি প্রকৃত ছাত্রলীগের কর্মী হয়ে থাকে তাহলে তাকে অবশ্যই ছাত্রলীগের ব্যানারেই রাজনীতি করতে হবে। এতে আলাদা গ্রুপের সুযোগ নেই। এই আদেশ কেউ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ২২ জুলাই বগিভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর শাটল ট্রেন থেকে বগিভিত্তিক নাম ও স্লোগান মুছে দেয়া হয়। এতে সিট দখলকে কেন্দ্র করে সাধারণ শিক্ষার্থী ও উপ-গ্রুপসমূহের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব অনেকটাই কমে আসে। তবে ক্যাম্পাসে বগিভিত্তিক গ্রুপের আধিপত্য থেকে যায়। যার রেশ ধরে আধিপত্য বিস্তার করতে কিছুদিন পরপরই সংঘর্ষে জড়ায় উপ-গ্রুপগুলো।

দীর্ঘ ১৯ মাস কমিটি বিহীন থাকার পর চলতি বছরের ১৪ জুলাই চবি ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে রেজাউল হক রুবেলকে সভাপতি এবং ইকবাল হোসেন টিপুকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এক বছরের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। এরপর থেকে হলভিত্তিক রাজনীতি সক্রিয় করার তোড়জোড় চালায় সংগঠনটি। অস্ত্র ও মাদকমুক্ত ক্যাম্পাস গড়ে তোলার পাশাপাশি বুদ্ধিভিত্তিক ও শিক্ষাবান্ধব রাজনীতির ঘোষণা দেয় নতুন কমিটি। কিন্তু একই সঙ্গে গ্রুপভিত্তিক রাজনীতিও চলতে থাকে। যা সাম্প্রতিক সময়ে চরম আকার ধারণ করেছে। আবাসিক হল, একাডেমিক ভবন, ক্যান্টিন, গুরুত্বপূর্ণ সড়কসহ ক্যাম্পাসের সর্বত্র বিভিন্ন গ্রুপের নাম ও স্লোগান লেখার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

আবদুল্লাহ রাকীব/এমবিআর/পিআর

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com