এক মাস পর হলে ফিরছে জাবি শিক্ষার্থীরা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৪:৩৯ পিএম, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯

দীর্ঘ এক মাস বন্ধের পর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হলসমূহ খুলে দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় হল খুলে দেয়ার পর শিক্ষার্থীরা নিজেদের হলে ফিরতে শুরু করেছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬টি আবাসিক হলই খুলে দেয়া হয়েছে। বন্ধের কারণে যেসব শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থান করেছিলেন তারা হলে আসতে শুরু করেছেন। একই সঙ্গে অনেক শিক্ষার্থী বাড়ি থেকে ক্যাম্পাসে ফিরছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাধ্যক্ষ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক বশির আহমেদ জাগো নিউজকে বলেন, সব হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা সকাল ১০টা থেকে নিজ নিজ হলে আসতে শুরু করেছে। তাদের নিরাপত্তায় প্রতিটি হলে সিসি টিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। এছাড়া হল মনিটরিং করা হবে। রোববার (৮ ডিসেম্বর) থেকে ক্লাস-পরীক্ষাসহ সকল কার্যক্রম নিয়মিতভাবে চলবে। আশা করছি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণার পরিবেশ স্বাভাবিক থাকবে।

এর আগে গতকাল বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রশাসনিক ভবনে আয়োজিত সিন্ডিকেটের এক জরুরি সভায় বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে হল খুলে দেয়া ও রোববার থেকে ক্লাস-পরীক্ষা শুরু করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ বছরের জুলাইয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়নের জন্য চলমান ১ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকার প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একটি অংশ। পরবর্তীতে এই প্রকল্প থেকে ছাত্রলীগকে বড় অঙ্কের আর্থিক সুবিধা দেয়ার অভিযোগে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের পদত্যাগ দাবিতে নানা সময়ে আল্টিমেটাম দিয়েছেন ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’র ব্যানারে আন্দোলনরতরা।

সেপ্টেম্বরে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন তাকে ১ অক্টোবরের মধ্যে স্বেচ্ছায় পদত্যাগে আহ্বান জানান তারা। কিন্তু এ সময়ের মধ্যে পদত্যাগ না করায় তার অপসারণের দাবিতে আন্দোলনে নামেন আন্দোলনকারীরা।

তিন মাসের অধিক সময়ের ধারাবাহিক এ আন্দোলনের অংশ হিসেবে গত ৪ নভেম্বর উপাচার্যের বাসভবন অবরোধ করেন আন্দোলনকারীরা। পরদিন ৫ নভেম্বর সেখানে মিছিল নিয়ে এসে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ। এ ঘটনায় আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হন।

এর প্রেক্ষিতে ওইদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের এক জরুরি সভায় অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা ও শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশনা দেয়া হয়। পরদিন ৬ নভেম্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে সব ধরণের মিছিল-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞাসহ ক্যাম্পাসে প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়। এরপর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় একমাস অচলাবস্থা চলছিল।

এই একমাসে নানা সময়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা হল খুলে দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ নিশ্চিতের দাবি জানান এরপর গতকাল সিন্ডিকেট থেকে হল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্তকে ইতিবাচকভাবে দেখছেন সকলে। ইতোমধ্যে হাসি মুখ নিয়ে হলে ফিরতে শুরু করেছেন শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মওলানা ভাসানী হলের স্নাতকোত্তর শ্রেণির আবাসিক শিক্ষার্থী জাহিদ হাসান জাগো নিউজকে বলেন, হঠাৎ হল ছাড়ার সিদ্ধান্তে বিপাকে পড়েছিলাম। তবে আবার হলে আসতে পেরে ভালো লাগছে।

ফারুক হোসেন/আরএআর/এমকেএইচ

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]