শেকৃবিতে চার আঞ্চলিক গ্রুপের দ্বিমুখী সংঘর্ষ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৯:০৩ পিএম, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) চারটি আঞ্চলিক গ্রুপের দ্বিমুখী সংঘর্ষে ১৩ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। সংঘর্ষের সময় সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে লাঞ্ছিত হয়েছেন দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের শেকৃবি প্রতিনিধি ওলী আহম্মেদ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার বেলা ১১টায় ভর্তি হতে আসা এক নবীন শিক্ষার্থীকে নিয়ে কুমিল্লা এবং ঢাকা আঞ্চলিক গ্রুপ টানাটানি শুরু করে। এরপর হাতাহাতি এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপ হয়।

কুমিল্লা গ্রুপের দাবি, সংঘর্ষে তাদের গ্রুপের ইয়াছিন, বাপ্পি, তানভির, ফাহিম মুতাছির আহত হন। দুপুর ১টার দিকে কবি কাজী নজরুল ইসলাম হলের সামনে দুই পক্ষ ফের সংঘর্ষে জড়ায়। এতে কুমিল্লা গ্রুপের আরিফুল ইসলাম, ফরহাদ, জয় শাহা এবং ঢাকা গ্রুপের মিজানুর রহমান বুলবুল, সৌমিক দাস প্রান্ত, সারোয়ার গুরুতর আহত হন। মঙ্গলবার রাত ৯টায় এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত তারা সবাই সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ ছাড়া ঢাকা গ্রুপের নিলয়, অনিক আহত হন।

অপরদিকে দুপুর ১২টার দিকে কেন্দ্রীয় অডিটরিয়ামের পেছনে লাইনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে উত্তর ও ময়মনসিংহ গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মরত বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাংবাদিক ওলী আহম্মেদ সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে তাকে লাঞ্ছিত করে মোবাইল কেড়ে নেয়া হয়।

সাংবাদিক লাঞ্ছনার বিচার দাবি করেছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি।

সংঘর্ষের বিষয়ে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মো. ফরহাদ হোসেন জানান, এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে কোনো লিখিত অভিযোগ আসেনি। আমরা তদন্ত কমিটি গঠন সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেব।

জেডএ/জেআইএম

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]