অনশনরত পাটকল শ্রমিকের মৃত্যুতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৮:৪১ পিএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯
পাটকল শ্রমিকের মৃত্যুতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

খুলনায় ১১ দফা দাবিতে অনশনরত পাটকল শ্রমিক আব্দুস সাত্তারের মৃত্যুর প্রতিবাদ ও শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিতের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুরাদ চত্বর থেকে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে মিছিলটি শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়। সমাবেশের শুরুতে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

সমাবেশে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ জাবি শাখার মুখপাত্র আরমানুল ইসলাম খান বলেন, ‘আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে স্মরণসভা, আলোচনা সভা করার কথা, কিন্তু সে জায়গায় আমাদের শ্রমিকদের জন্য বিক্ষোভ মিছিল করতে হচ্ছে। স্বাধীনতার ৫০ বছরেও দেশের শ্রমিকরা ন্যায্য অধিকার না পেয়ে অনাহারে মরছেন।’

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ জাবি শাখার আহ্বায়ক শাকিল উজ জামান বলেন, ‘ন্যায়ের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য স্বাধীন এই দেশে আজ ন্যায়ের পক্ষে কথা বললে রাষ্ট্রের নিপীড়নের শিকার হতে হয়। দেশের শ্রমিকরা অনাহারে মরছেন। তাদের ন্যায্য দাবি আদায়ে বার বার রাস্তায় নামতে হয়। আগামীকাল রোববার (১৫ ডিসেম্বর) শ্রমিকদের ১১ দফা দাবি না মানা হলে শ্রমিকদের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে আমরাও আন্দোলনে নামব।’

বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে সংহতি জানিয়ে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের কার্যকরী সদস্য রকিবুল হক রনি বলেন, রাষ্ট্রের উচিত ছিল আগে থেকেই শ্রমিকদের সমস্যার সমাধান করা। এদেশে যখন কোনো শ্রমিক মারা যান তখন তার পরিবারকে টাকা দিয়ে সরকার দায় সারে। দেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়লেও শ্রমিকদের অবস্থা পরিবর্তনে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয় না।

প্রসঙ্গত, পাটকল শ্রমিকদের মজুরি কমিশনসহ ১১ দফা দাবিতে গত ১৭ নভেম্বর ছয়দিনের কর্মসূচির ডাক দেয় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ সংগ্রাম পরিষদ। গত ২৫ নভেম্বর থেকে কর্মসূচি শুরু হয়। ১০ ডিসেম্বর শুরু হয় আমরণ অনশন।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলেন অনশনরত পাটকল শ্রমিক আব্দুস সাত্তার।

আমরণ অনশনের চারদিনে দুই শতাধিক শ্রমিক অসুস্থ হন। শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) রাতে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ানের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনদিনের জন্য আমরণ অনশন স্থগিতের ঘোষণা দেন শ্রমিকরা।

ফারুক হোসেন/এএম/জেআইএম

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]