জবিতে আন্তঃবিভাগ আবৃত্তি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:২৭ পিএম, ১৮ জানুয়ারি ২০২০

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) আন্তঃবিভাগ আবৃত্তি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাশহীদ রফিক মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ প্রতিযোগিতায় শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। প্রতিযোগিতায় বিজয়ী প্রথম ১০ জনকে সার্টিফিকেট ও প্রথম তিনজনকে ক্রেস্ট প্রদান করা হবে।

দিনব্যাপী এ আয়োজনে বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান উল্লাহ তমাল, দফতর সম্পাদক শিরিন ইসলাম, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আবৃত্তি সংসদের ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা কামরুল ইসলাম জুয়েল ও শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ বিষয়ক উপদেষ্টা কে এম সুজাউদ্দিন।

প্রতিযোগিতা মোট দুটি পর্বে অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম পর্বে ‘তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা’ কবিতাটি নির্ধারিত ছিল যেখানে প্রত্যেক প্রতিযোগীর এই কবিতাটি আবৃত্তির পর বিচারকদের বিচারে ২৫ জন নির্ধারিত হয় দ্বিতীয় পর্বের জন্য। দ্বিতীয় পর্বে ‘স্বাধীনতা এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হলো’ নির্ধারিত কবিতার পাশাপাশি একটি স্বনির্বাচিত কবিতা আবৃত্তি করেন।

দ্বিতীয় পর্বে প্রত্যেক প্রতিযোগীর দুটি করে কবিতা পরিবেশনের পর বিচারকদের বিচারে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়সহ মোট ১০ জনকে উত্তীর্ণ ঘোষণা করা হয়। এর মধ্যে প্রথম তিনজন পাবেন ক্রেস্ট এবং সার্টিফিকেটসহ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আবৃত্তি সংসদ আয়োজিত দুই মাসব্যপী ১৭তম কর্মশালা করার সুযোগ। এছাড়াও বাকি সাতজন পাবেন সার্টিফিকেট।

অনুষ্ঠান সম্পর্কে ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা কামরুল ইসলাম বলেন, অভ্যন্তরীণভাবে সকল শিক্ষার্থীর মাঝে আবৃত্তির গুরুত্ব অনুধাবনের সুযোগ করে দেয়ার জন্যে ছোট পরিসরে হলেও এই আয়োজনের গুরুত্ব অনেক। আমরা প্রতি বছরই এ রকম অনুষ্ঠানের আয়োজন করব।

শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ উপদেষ্টা কে এম সুজাউদ্দিন বলেন, এ রকম অনুষ্ঠান আবৃত্তি সংসদের উজ্জ্বলতার অংশ, সকল শিক্ষার্থীর মাঝে এই আয়োজন ব্যাপক সাড়া ফেলতে সক্ষম হয়েছে।

এ বিষয়ে সংগঠনটির সভাপতি আব্দুল্লাহ আল সাইমুন পাভেল বলেন, আমরা আনন্দিত শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে।

সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান নোমান বলেন, আশা থাকবে পরবর্তী কার্যনির্বাহীরাও এ ধরনের আয়োজনের দিকে লক্ষ্য রাখবেন।

প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেছেন নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থী অরুন্ধতী দত্ত, দ্বিতীয় স্থান ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের মোসাররাত রাহিম এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করেছেন নৃবিজ্ঞান বিভাগের অমৃতা বিশ্বস।

প্রথম স্থান অধিকারী অরুন্ধতী দত্তের কাছে অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিজয়ী হয়ে আমি আনন্দিত আর পুরো আয়োজনেও আমি খুশি। আবারও এ রকম আয়োজনের আশা করব।

বিএ/পিআর

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]