কপাটবিহীন একটি ফটকের গল্প

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৬:৫৪ পিএম, ২২ জানুয়ারি ২০২০

১ বছর ৮ মাস ২৪ দিন (প্রায় ২ বছর) ধরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) প্রধান ফটকে কপাট নেই। ফটকটিতে তালা ঝুলিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ২৯ এপ্রিল রাতের আধারে সরিয়ে ফেলা হয়েছিল কপাটটি। এরপর থেকেই কপাটবিহীন এই ফটক। এখনও কপাট লাগানোর কোনো উদ্যোগ নেয়নি প্রশাসন। ফলে রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক তালাবদ্ধ করার সুযোগ না থাকায় অরক্ষিত থাকছে পুরো ক্যাম্পাস।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ১০ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার পর শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে অবস্থান না করার নির্দেশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তবে নির্ধারিত সময়ের পর গেট তালাবদ্ধ করার সুযোগ না থাকায় ক্যাম্পাসেই অবস্থান করছেন শিক্ষার্থীরা। এ ক্ষেত্রে নিরাপত্তা প্রহরীরা মাঝেমধ্যে বাধা দিলে তাদের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের কথা কাটাকাটিও হয়ে থাকে। এ ছাড়া রাত ১০ টার পর ক্যাম্পাসে অপ্রীতিকর ঘটনার সম্ভাবনা তো থেকেই যায়।

কেন কপাটবিহীন হলো প্রধান ফটক?

জবির বেশ কয়েকজন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২০১৮ সালের ২৬ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক নাসির উদ্দিনকে প্রকাশনা জালিয়াতির অভিযোগে বরখাস্ত করলে শিক্ষার্থীরা তাকে পুনর্বহালের দাবিতে আন্দোলনে নামে। নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন ফলপ্রসূ না হলে ২৯ এপ্রিল শিক্ষার্থীরা প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে অবস্থান সমাবেশ করেন। ওইদিন শিক্ষার্থীদের বাধার কারণে উপাচার্য ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পারেননি। পরে ২৯ এপ্রিল রাতেই প্রধান ফটক থেকে লোহার কপাট সরিয়ে নতুন ভবনের নিচে গাড়ির গ্যারেজে রাখা হয়।

JnU-Main-Gate-2.jpg

সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী সোহেল জানান, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় প্রধান ফটকে তালা ঝোলানো হয়েছিল। কিন্তু কেন ওই তালা না খুলে কপাটটিই সরিয়ে ফেলা হলো? এ কি এ জন্য যে আর যেন শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করে ফটকে তালা না ঝুলাতে পারে? কিন্তু এটাই কি সমাধান?

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আগে রাত ১০টার পরে মাদকসেবন, ছিনতাইসহ নানা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটত। এরই পরিপ্রেক্ষিতে রাত ১০ টার পর কোনো শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে অবস্থান করতে পারবে না বলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জানিয়েছিল। কিন্তু এখন প্রশাসনের ওই নিয়ম অনেকটাই অকার্যকর হয়েছে প্রধান ফটকে কপাট না থাকায়। ফলে রাতের ক্যাম্পাস অপরাধীদের অভয়ারণ্য।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামালের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। নতুন কপাট লাগাবার কোনো পরিকল্পনা আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘অফিসে দেখা করে চা খেয়ে যান।’

জেডএ/এমএস

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]