আসন্ন বাজেটে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি

 

আসন্ন বাজেটে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ বৃদ্ধির দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ।

মঙ্গলবার (১২ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আসন্ন বাজেটে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ বৃদ্ধির দাবিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মানববন্ধন করেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

মানববন্ধনে ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অনিক রায়ের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি মেহেদী হাসান নোবেল। মানববন্ধন থেকে আসন্ন বাজেটে শুধুমাত্র স্বতন্ত্রভাবে শিক্ষাখাতে মোট বাজেটের ১৮ শতাংশ বরাদ্দ এবং ক্রমান্বয়ে তিন বছরের মধ্যে ২৫ ভাগে রূপান্তরিত করার দাবি জানানো হয় ।

কর্মসূচিতে সভাপতি মেহেদী হাসান নোবেল বলেন, আজকে এই করোনা পরিস্থিতি আমাদের সামনে অনেক সত্য উন্মোচন করে দিয়েছে। আজকে বাংলাদেশের মানুষ প্রশ্ন তোলা শুরু করেছে, হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করে কেনা সামরিক ট্যাংক আমাদের দরকার নাকি করোনাভাইরাসের মতো দুর্যোগ মোকাবিলায় দেশের জনকল্যাণমুখী গবেষণা ও স্বয়ংসম্পূর্ণ হাসপাতাল দরকার। এই সময়ে সামরিক খাতের হাজার হাজার কোটি টাকার বরাদ্দের চেয়ে বেশি দরকার শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করা দেশে, গবেষণা ও স্বাস্থ্যখাতের শক্ত পাটাতন তৈরি করা। এ জন্যই আসন্ন বাজেটকে সামনে রেখে আমরা দাবি জানাচ্ছি, বাজেটের ১৮ ভাগ শিক্ষাখাতে বিনিয়োগ করতে হবে এবং করোনা পরবর্তী শিক্ষাব্যবস্থা ঢেলে সাজাতে হবে। উচ্চশিক্ষাকে করতে হবে গবেষণামুখী।

jagonews24

সাধারণ সম্পাদক অনিক রায় বলেন, যখন বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে র্যাপিড টেস্ট বা প্রতিষেধক আবিষ্কারের জন্য গবেষণা করেছে তখন বাংলাদেশে ছাত্র ইউনিয়নসহ আরো অংশীজনদের দাবির মুখে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো করোনা টেস্টের প্রক্রিয়া শুরু করার উদ্যোগ নিয়েছে মাত্র। দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গবেষণাখাতের এই করুণ অবস্থার জন্য দায় সরকারকেই নিতে হবে। বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নসহ দেশের শিক্ষাবিদ, গবেষকদের দীর্ঘদিনের দাবি থাকা সত্ত্বেও শিক্ষাখাতে বাজেট বাড়ায়নি সরকার। ইউনেস্কোর শিক্ষা দলিলে স্বাক্ষরিত দেশ হিসেবে মোট বাজেটের ২৫ ভাগ শিক্ষাখাতে বরাদ্দ দেয়া গেলে দেশের গবেষণাখাতকে শক্তিশালী করা যেত। বর্তমান সময়ের সার্টিফিকেটমুখী শিক্ষা ব্যবস্থা আর বরাদ্দের অভাবই দেশের ক্রান্তিকালে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গবেষণাগারকে অকেজো করে রেখেছে।

মানববন্ধনে ছাত্র ইউনিয়নের পক্ষ থেকে শিক্ষাখাত থেকে তথ্য-প্রযুক্তি ও শিক্ষণ-প্রশিক্ষণকে আলাদা করে পৃথক বরাদ্দের দাবি জানানো হয়। এ সময় বক্তারা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের টিউশন ফি এবং শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া মওকুফের দাবিও জানান।

আল সাদী/এমএসএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]