গ্রিন ইউনিভার্সিটিতে ‘এসটিআই ৪.০’ আন্তর্জাতিক সম্মেলন ডিসেম্বরে

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৩৩ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার অংশ হিসেবে দ্বিতীয়বারের মতো ‘সাসটেইনেবল টেকনোলজিস ফর ইন্ডাস্ট্রি (এসটিআই) ৪.০’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করেতে যাচ্ছে গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ আয়োজিত দুই দিনব্যাপী এ সম্মেলন আগামী ১৯-২০ ডিসেম্বর পূর্বাচল আমেরিকান সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হবে। এতে বাংলাদেশ ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়াসহ আন্তর্জাতিক পর্যায়ের ৫ শতাধিক গবেষক ও শিক্ষক যোগ দেবেন।

এর আগে প্রথম এসটিআই সম্মেলনে বিশ্বের ২০টি দেশ থেকে ১২ জন স্পিকার, ২০০ লেখক, শতাধিক সিনিয়র গবেষক ও ৩০ জনেরও বেশি ইন্ডাস্ট্রি পারসন অংশ নেন। সংশ্লিষ্টদের প্রত্যাশা, আন্তর্জাতিক পর্যায়ের এই অনুষ্ঠান চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের অঙ্গনে প্রথম সারির সম্মেলন হিসেবে রূপ পাবে।

সম্মেলনে মোট তিনটি পৃথক ট্র্যাক তথা ইন্টেলিজেন্ট কম্পিউটিং, নেটওয়ার্ক অ্যান্ড সিকিউরিটি সিস্টেমস, এনার্জি, রোবটিক্স, ইলেক্ট্রনিক্স, সেন্সরস অ্যান্ড কমিউনিকেশন এবং টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ওপর আলোচনা থাকবে। সম্মেলনে উপস্থাপিত গবেষণা প্রবন্ধগুলো আইইইই এক্সপ্লোর ডিজিটাল লাইব্রেরিতে স্থান পাবে। এতে তিনটি প্রবন্ধ ও পোস্টার প্রেজেন্টশন ‘বেস্ট পেপার’ হিসেবে নির্বাচিত হবে।

গ্রিন ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য ও সম্মেলনের জেনারেল চেয়ার অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, ইন্ডাস্ট্রি ৪.০ বলতে মূলত চতুর্থ শিল্প বিপ্লবকে বোঝায়, যেখানে অটোমেশন এবং সাইবার-ফিজিক্যাল সিস্টেম দ্বারা স্মার্ট ইন্ড্রাস্টিজ, স্মার্ট গ্রিডস, ইন্টেলিজেন্ট ট্রান্সপোর্টেশন ও রিয়েল-টাইম হেলথ কেয়ারের মতো বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত।

তিনি বলেন, এসটিআই সম্মেলনের লক্ষ্য শিল্প বিপ্লবের বিভিন্ন ক্ষেত্রে গবেষক ও অনুশীলনকারীদের মধ্যে নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করা। যেখানে গবেষণাপত্র উপস্থাপন, নতুন আইডিয়া তৈরি, সাসটেইনেবল টেকলোজির চ্যালেঞ্জ গ্রহণ ও তা বাস্তবায়নের উপায় সংক্রান্ত নানা দিক নিয়ে আলোচনা হবে।

সম্মেলনে কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওটার লু’র আইইইই ফেলো ক্লাউডিও এ কেনিজারেজ স্মার্ট গ্রিড সিস্টেমের ওপর বক্তৃতা করবেন। এছাড়া অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব মেলবোর্নের আইইইই ফেলো রাজকুমার ভুইয়া ক্লাউড অ্যান্ড এজ কম্পিউটিংয়ের ওপর, কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলোম্বিয়ার আইইইই ফেলো ভিনসেন্ট ওয়াং ৫জি ইন্টারনেট ও ইমার্জিং অ্যাপ্লিকেশন সার্ভিসের ওপর এবং অস্ট্রোলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব নিউ সাউথ ওয়েলসের অধ্যাপক হুসেইন আব্বাস ভবিষ্যৎ কর্মকাণ্ডে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সির প্রভাব নিয়ে আলোচনা করবেন।

এদিকে রাজধানীর ট্রাফিক শনাক্তকরণে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এআই-বেসড প্রজেক্ট কাজ করছে। এলসেভিয়ার দ্বারা অর্থায়িত এই প্রজেক্টটি গ্রিন ইউনিভার্সিটির আন্তর্জাতিক সম্মেলনে সহযোগী হিসেবে কাজ করবে। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি ও মেশিন লার্নিয়ে দক্ষতাসম্পন্ন পাবলিক-প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এই প্রজেক্টের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবে। এর বাইরেও সম্মেলনে ‘এডুকেশন ৪.০- প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনীর সঙ্গে এগিয়ে যাওয়া’ শীর্ষক একটি টিউটোরিয়াল স্থান পাবে।

এমএসএইচ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]