সকল সমস্যা অতিক্রম করেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এগিয়ে যাচ্ছে

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৭:৩৪ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০২০

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেছেন, সকল সমস্যা অতিক্রম করে সমসাময়িক অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এগিয়ে যাচ্ছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উপলক্ষে আজ (মঙ্গলবার) আয়োজিত এক ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মীজানুর রহমান বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল সম্পদ হচ্ছে মেধাবী শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় শতাধিক শিক্ষক পিএইচডি গবেষণা করছেন। মানবসম্পদ উন্নয়নে আমরা অনেক এগিয়ে রয়েছি। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের গবেষণা আরও বৃদ্ধি করতে হবে, কিন্তু খেয়াল রাখতে হবে তা যেন আন্তর্জাতিক মানের হয়। যেকোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় আমাদের শিক্ষার্থীদের অবস্থান সবার শীর্ষে।

তিনি আর বলেন, শতভাগ অনাবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে অন্যান্য সকল সমস্যা অতিক্রিম করেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সমসাময়িক অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় এগিয়ে যাচ্ছে। আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম হল ‘বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল’ এর উদ্বোধন হলো। করোনা মহামারির পরেই ছাত্রীরা হলে উঠতে পারবে। অবকাঠামোগত যে সংকট রয়েছে নতুন ক্যাম্পাস স্থাপনের মাধ্যমে সেটিও নিরসন হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক সহায়তায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে কেরাণীগঞ্জে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০ একর (প্রায়) ভূমির অধিগ্রহণ ও উন্নয়নের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে।

jagonews24

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ। সঞ্চালনা করেন রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. ওহিদুজ্জামান।

এর আগে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন, বেলুন উড়িয়ে ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের উদ্বোধন করেন উপাচার্য এবং ট্রেজারার।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য ১২ আসন বিশিষ্ট দুটি মাইক্রোবাস ও জবি পরিবহন পুলের ড্রাইভার এবং বাসের হেলপারদের জন্য বিশ্রামাগারেরও উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান।

প্রতিবছর জাঁকজমকপূর্ণ বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হলেও এবার করোনা ভাইরাসের কারণে সীমিত পরিসরে দিবসটি উদযাপিত হয়।

এনএফ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]