করোনার ছুটিকে অন্যভাবে কাজে লাগালেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৪৪ পিএম, ২৯ অক্টোবর ২০২০

বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারির কারণে অর্থনৈতিক সংকটে অনেক শিক্ষার্থীরই লেখাপড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম। এমনকি ইতোমধ্যে অনেক শিক্ষার্থী পড়ালেখা বন্ধ করে দিতে বাধ্যও হয়েছে। বিশেষ করে গ্রাম ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের ছাত্রছাত্রীরা বেশি পিছিয়ে পড়েছে।

নিজ এলাকায় অর্থনৈতিক সংকটের কারণে পিছিয়ে পড়া এমন শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছেন গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগের ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী আল-আমিন শাহ। ইতোমধ্যে বিভিন্ন শ্রেণির প্রায় ১৫ জন দরিদ্র ছেলে-মেয়েকে পড়াতে শুরু করেছেন তিনি।

দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর থানার অন্তর্গত উত্তর পলাশবাড়ী গ্রামের শাহাপাড়া এলাকার কৃষক পরিবারের সন্তান আল আমিন ভাই-বোনদের মধ্যে সবার ছোট। বাবা-মায়ের উৎসাহেই এমন উদ্যোগ নিয়েছেন বলে জানালেন আল-আমিন।

আল-আমিন বলেন, আমার দাদা যখন ১৯৭১ সালে পাক হানাদার বাহিনীর গুলিতে শহীদ হন তখন আমার বাবা অনেক ছোটো ছিলেন। অর্থ এবং সুযোগ সুবিধার অভাবে তিনি বেশিদূর পড়ালেখা করতে পারেননি। আমার বাবা সবসময়ই সেই দিনগুলোর কথা বলে আক্ষেপ করেন, যা আমাকে আজও পোড়ায়। এছাড়া আমি যখন কলেজে পড়তাম তখনও দেখতাম আমার অনেক মেধাবী বন্ধু টাকার অভাবে পড়ালেখা করতে পারছে না।

AL-Amin

‘এবার বাড়িতে এসে দেখি করোনার জন্য অনেকের পড়ালেখা বন্ধ। সেই জায়গা থেকেই সিদ্ধান্ত নিই যতটুকু সম্ভব নিজের জায়গা থেকে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়াব। তাদের সহযোগিতা করব।’

এই উদ্যোগ গ্রহণের পর ইতোমধ্যে আল আমিনের কাছে ১৫ জন শিক্ষার্থী পড়তে শুরু করেছে। নিজ উদ্যোগে আল-আমিন তাদের বিনামূল্যে পাঠদানের ব্যবস্থা করলেও অনেকেরই খাতা, কলম ও বইয়ের অভাব রয়েছে যা তার একার পক্ষে সমাধান সম্ভব নয়।

আল-আমিন বলেন, সমাজের বিত্তবান মানুষরাও এ সকল শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় এগিয়ে এলে আর কোনো শিক্ষার্থীকে টাকার জন্য পড়ালেখার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হতে হবে না।

শুধুমাত্র দরিদ্র শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পাঠদানই নয় আল-আমীন মাদকবিরোধী সচেতনতা তৈরির জন্যও কাজ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর অনেক বন্ধু, বড় ভাইকে মাদকের করাল গ্রাসে হারিয়ে যেতে দেখে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন মাদকবিরোধী সামাজিক সংগঠন ‘উপলব্ধি’। সংগঠনটি বশেমুরবিপ্রবির শিক্ষার্থীসহ গোপালগঞ্জ এবং দিনাজপুরের বিভিন্ন জায়গায় তরুণদের মাদকের বিরুদ্ধে সচেতন করতে কাজ করে।

আল আমিন জানান, তার এসব উদ্যোগে অনেক সময় অনেক ধরনের বাধা এসেছে। কিন্তু তিনি থেমে জাননি। তিনি এমন এক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেন যেখানে মাদকের ভয়াল ছোবল থাকবে না, যেখানে অর্থের অভাবে আর কোনো শিক্ষার্থী পড়ালেখা বন্ধ করতে বাধ্য হবে না। যেখানে প্রত্যেক বিত্তবান মানুষ অসহায়দের পাশে দাঁড়াবে এবং সবাই মিলে সৌহার্দ্য, সস্প্রীতি আর ভালোবাসাপূর্ণ এক সুন্দর সমাজ গড়ে তুলবে।

এফএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]