১০ লাখ টাকা ব্যয়ে আধুনিক ওয়েবসাইট পাচ্ছে কুবি

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১০:০৯ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০২১

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) বর্তমান ওয়েবসাইট বাতিল করে নতুন করে পূর্ণাঙ্গ ওয়েবসাইট প্রকাশ করা হবে। এর জন্য ১০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লোকপ্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. রশিদুল ইসলাম শেখ।

তিনি বলেন, কন্টেন্ট রেডি করে দেশের স্বনামধন্য ১০টি কোম্পানিকে আমরা চিঠি দিয়েছি। কোম্পানিগুলো বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সবার সামনে এটা প্রদর্শন করবে। সেখান থেকে তিনটি বাছাই করব। এরপর সেই তিনটির থেকে সবচেয়ে ভালো যেটা হবে, সেটাই আমরা সিলেক্ট করে তাদেরকে কাজ দিব। ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখ পর্যন্ত এর সময় নির্ধারণ করা হয়েছে।

বর্তমান ওয়েবসাইটে বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য তথ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ের পোর্টফলিও কিংবা বিভাগের নোটিশ কোনো কিছুই পর্যাপ্ত পরিমাণে নেই। এ নিয়ে নানা সময় শিক্ষার্থীরা তাদের হতাশার কথা জানালেও ওয়েবসাইটের পরিবর্তন আনা হয়নি।

ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষার্থী কাতিব হাসান মুরাদ বলেন, আমরা যখন ওয়েবসাইটে প্রবেশ করলে শুধু কয়েকটা ফ্যাকাল্টি আর মেম্বারদের তথ্য পাই, গুরুত্বপূর্ণ নোটিশ বা তথ্য যথাসময়ে পাচ্ছি না। একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট আরও সহজলভ্য ও তথ্যবহুল হওয়া দরকার।

ওয়েবসাইটটিতে ঘেঁটে দেখা যায়, বিজ্ঞান অনুষদ ও ব্যবসা শিক্ষা অনুষদের কিছু বিভাগে কোন বিষয়গুলো পড়ানো হবে দেয়া থাকলেও বেশিরভাগ বিভাগে শুধু লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সম্পর্কেই লেখা রয়েছে। অনেক বিভাগে স্নাতকোত্তরের কোর্স চলমান থাকলেও নেই সে বিষয়ে কোনো তথ্য। বিভাগের নোটিশ বোর্ডগুলোতে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের নোটিশ না থাকলেও উইকেন্ড/ইভেনিং এম.এ/এমবিএর নোটিশ রয়েছে। বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভর্তি সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি।

সিলেবাসের দিকে নজর দিলে দেখা যায়, শুধুমাত্র গণিত ও লোকপ্রশাসন বিভাগে পূর্ণাঙ্গ সিলেবাস দেয়া রয়েছে। বাকি যাদের দেয়া রয়েছে তাদেরগুলো আগের ব্যাচের জন্য কার্যকরী হলেও বর্তমান যেসব ব্যাচ চলমান, সেসব ব্যাচের জন্য নেই কোনো সিলেবাস। এছাড়া আইসিটি ডিপার্টমেন্ট সিলেবাসের জায়গায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে তথ্য নিয়ে বিবরণ পত্র (প্রসপেক্টাস ইন কুমিল্লা ইউনিভার্সিটি) দেয়া রয়েছে।

প্রতি বিভাগের পোর্টফলিও তৈরি করা থাকলেও বিজ্ঞান অনুষদের গণিত বিভাগ, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের লোকপ্রশাসন বিভাগ, ব্যবসা শিক্ষা অনুষদের ব্যবস্থাপনা বিভাগ ও প্রকৌশল অনুষদের দুই বিভাগ ছাড়া আর কোনো বিভাগের পোর্টফলিওতে বিভাগের ছবিও দেয়া নেই। সারা বছর বিভিন্ন দিবস, অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হলেও আপডেট করা হয়নি বিশ্ববিদ্যালয়ের পোর্টফলিও।

ওয়েবসাইটটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তাদের পরিচয় বিস্তারিত দেয়া হয়নি। শুধুমাত্র নাম, ছবি, ই-মেইল, ফোন নম্বরে পরিচয় সীমাবদ্ধ। একজন শিক্ষক কোন বিষয়ে গবেষণা করছে বা করেছেন সেসব বিষয় নিয়ে কিছুই লেখা নেই ওয়েবসাইটে। ফলে, শিক্ষার্থীরা কোন গবেষণার কাজে কোন শিক্ষকের কাছ থেকে সঠিক দিক-নির্দেশনা পেতে পারেন তা নিয়ে সংশয়ে থাকেন।

ওয়েবসাইটে তথ্যের অপর্যাপ্ততা ও সীমাবদ্ধতা নিয়ে আইটি সেলের সহকারী ডাটাবেজ প্রোগ্রামার মো. মাসুদুল হাসান বলেন, আমরা যুগোপযোগী একটা ওয়েবসাইট বানানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছি। এরইমধ্যে কয়েকটা সফটওয়্যার ফার্মকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। তাদের সঙ্গে বাজেট নিয়ে আলোচনা চলছে। অতি অল্প সময়ের মধ্যে আমরা নতুন ওয়েবসাইটটি সবার কাছে পৌঁছে দিতে পারব বলে আশা করছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের বলেছেন, আমরা নতুন ওয়েবসাইটের জন্য লোক প্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রশিদুল ইসলাম শেখকে প্রধান করে একটা কমিটি গঠন করেছি। এই কমিটি সফটওয়্যার ফার্মগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে একটি আধুনিক ওয়েবসাইট শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দেয়া হবে।

এসজে/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]