ডাকসুর সাবেক সমাজসেবা সম্পাদক আকতার হোসেন গ্রেফতার

আকতার হোসেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আইন বিভাগের সামনে থেকে ডাকসুর সাবেক সমাজসেবা সম্পাদক ও ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাবি শাখার সভাপতি আকতার হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) যুগ্ম-কমিশনার মো. মাহবুব আলম জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে শহীদ মিনার এলাকা থেকে নিখোঁজ হন আকতার হোসেন। তবে তাকে তুলে নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে শাহবাগ থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন অর রশিদ জাগো নিউজকে বলেন, এই নামে কাউকে শাহবাগ থানা পুলিশ আটক করেনি।

আকতার হোসেনের সাথে থাকা ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম আবিদ জাগো নিউজকে বলেন, পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে ছাত্র অধিকার পরিষদের পক্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ শেষে আমরা টিএসসি থেকে আইন বিভাগের দিকে যায়। যাওয়ার পথে শাহবাগ থানার উপ-পরিদর্শক রইচ উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি গাড়ি আমাদের পেছনে থামে। এ সময় আকতার হোসেনকে ধরে বলেন, আপনাকে বহির্বিভাগের (ঢামেকের বহির্বিভাগ গেট) সামনে আমাদের অফিসার আপনার সাথে কথা বলবে, চলেন। এই বলে তাকে সেখানে নিয়ে যান। এরপর থেকে তার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

এ বিষয়ে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর জাগো নিউজকে বলেন, আকতার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন জনপ্রিয় ছাত্রনেতা। অনেক দিন ধরে তিনি অসুস্থ। অসুখ নিয়েই ক্যাম্পাসে ত্রাণ বিতরণ কর্মসূচিতে অংশ নেন তিনি। সেখান থেকে পুলিশ তাকে তুলে নিয়ে যায়।

তিনি বলেন, সরকার করোনার নামে লকডাউন দিয়ে বিরোধী মতকে দমন করার জন্য গ্রেফতার-গুম করে যাচ্ছে। রমজানের শুরুতে ডাকসুর নির্বাচিত নেতাকে তার নিজ বিভাগ থেকে তুলে নেয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে এভাবে একজন ছাত্রনেতাকে তুলে নেয়া খুবই ন্যাক্কারজনক। আমরা অবিলম্বে আকতার হোসেনের মুক্তি দাবি করছি।

উল্লেখ্য, গত ২৫ মার্চ মতিঝিলে ছাত্র, যুব ও শ্রম অধিকার পরিষদের বিক্ষোভ মিছিল শেষে পুলিশের ওপর হামলা ও আসামি নেয়ার অভিযোগে পুলিশ ওই দিনই শাহবাগ থানায় মামলা করে। ওই মামলায় ১ নম্বর আসামি আকতার হোসেন। আর মতিঝিল থানায় করা মামলয় তাকে ৩৩ নম্বর আসামি করা হয়েছে।

টিটি/আল সাদী/এমএসএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]