হাসিমুখে ঈদ উদযাপনে দোকানি-কর্মচারীদের পাশে ইবি শিক্ষার্থীরা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ইবি
প্রকাশিত: ০৬:২৬ পিএম, ০৮ মে ২০২১

হাসিমুখে ঈদ উদযাপনে চলমান লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত দোকানি ও কর্মচারীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (৮ মে) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় ৭৫ জন দোকানি ও কর্মচারীদের মাঝে এ সহায়তা দেয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের আলোড়িত ৩০, অদম্য ৩১, বন্ধন ৩২ ও সঞ্জীবনী ৩৩ নামের চারটি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা তাদের নিজস্ব অর্থায়নে এ আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন।

করোনায় গত এক বছরের বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে ক্যাম্পাস। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী শূন্য থাকায় ক্যাম্পাসের দোকানি-কর্মচারীরা অলস সময় পার করছেন। তবে লকডাউনের আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসসমূহ সীমিত পরিসরে চালু থাকায় কিছু দোকানদার তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম চালু রেখেছিল।
লকডাউন ঘোষণার পর এসব দোকানিরাও তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে। ফলে ঈদের আগ মুহূর্তেও আয়-রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে আছে এসব দোকানিদের। তাই তাদের সঙ্গে হাসিমুখে ঈদ উদযাপনে এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ হাতে নেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।

সপ্তাহব্যাপী অনলাইনে অর্থ সংগ্রহ করে ১ লাখ ২০ হাজার টাকার আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়া নারীদের মাঝে দশটি শাড়িও বিতরণ করা হয়েছে।

jagonews24

আর্থিক সহায়তা পেয়ে খুশি ক্যাম্পাসের হোটেল ব্যবসায়ী বছির উদ্দীন। তিনি বলেন, ‘কিছুদিন আগে স্ট্রোক করে অনেক টাকার ওষুধ কিনতে হচ্ছে। হোটেল বন্ধ থাকায় রোজগারের পথও বন্ধ হয়ে আছে। তারা আমাকে চার হাজার টাকা দিয়েছে। এ টাকা দিয়ে ওষুধ ও ছেলের ঈদের জামা কিনব।’

আরেক নারী হোটেল ব্যবসায়ী আলেয়া বেগম বলেন, ‘হোটেল চালু না করতে পারায় মেস-বাসাবাড়িতে রান্নার কাজ শুরু করেছি। সংসার চালাতে হলে কাজ করে খেতেই হবে। তাদের সহায়তা পেয়ে আমি খুবই খুশি। অন্তত ঈদটা ভালোভাবে কাটাতে পারব।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘আলোড়িত ৩০’ নামক ব্যাচ ভিত্তিক সংগঠনের সদস্য রিয়াদুস সালেহিন বলেন, ‘আমরা দোকানি-কর্মচারীদের পাশে থেকে তাদের মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টা করেছি। শিক্ষার্থীরা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছে। আমরা তাদের মুখে হাসি ফোটাতে পেরে বড়ই আনন্দিত।’

উপস্থিত থেকে দোকানিদের মাঝে আর্থিক সহায়তা দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আনোয়ারুল হক স্বপন, সহকারী প্রক্টর ড. শফিকুল ইসলাম, সহকারী প্রক্টর সাজ্জাদুর রহমান টিটু ও ইবি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সরকার মাসুম।

রায়হান মাহবুব/এসজে/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]