করোনার টিকা নিশ্চিতে অগ্রগতি নেই সাত কলেজে

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক
ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ঢাকা কলেজ
প্রকাশিত: ০২:০৭ পিএম, ১২ জুন ২০২১ | আপডেট: ০২:৩৬ পিএম, ১২ জুন ২০২১

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আঘাত হানার পর গত বছরের ১৮ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সরকারি ঘোষণামতে শিক্ষার্থীদের করোনার টিকা নিশ্চিত না করে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলছে না। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে ইতোমধ্যে ইউজিসি থেকে শিক্ষার্থীদের তালিকা চাওয়া হয়েছে। অনেক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের তালিকা ইউজিসিতে পাঠিয়েছে। তবে সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রাপ্তির বিষয়ে কোনো উদ্যোগই নেয়া হয়নি।

রাজধানীর সাতটি সরকারি কলেজে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় দুই লাখ। বর্তমানে এই সাতটি প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত। এই সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রাপ্তির বিষয়টি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে ইউজিসি দেখবে নাকি শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেখবে সেটি এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি সাত কলেজ প্রশাসন।

কয়েকটি কলেজের অধ্যক্ষদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শিক্ষার্থীদের টিকা নিশ্চিতের বিষয়ে সরকারি কোনো দফতর থেকে এখন পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা পাননি তারা। তবে বিশ্ববিদ্যালয় ও মন্ত্রণালয়ের টানাপোড়েনে টিকা প্রাপ্তি বিলম্ব হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে।

রাজধানীর এই সাত সরকারি কলেজের মধ্যে ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ ও সরকারি বাঙলা কলেজে আবাসিক হল রয়েছে। সবমিলিয়ে এই কলেজগুলোর প্রায় ৩০ হাজার শিক্ষার্থী হলে থাকেন। টিকা প্রাপ্তির আনুষ্ঠানিকতা এখনো শুরু না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

ইডেন মহিলা কলেজের আবাসিক শিক্ষার্থী সুমাইয়া নাজনীন জাগো নিউজকে বলেন, ‘টিকা পাওয়ার বিষয়ে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রগতি বেশি। টিকা নিশ্চিত না করে যদি ক্যাম্পাস না খোলে আমরা পিছিয়ে পড়বো। আমরা এমনিতেই সেশনজটে আটকে আছি। সরকারের উচিত সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের প্রতি নজর দেয়া।’

ঢাকা কলেজের আবাসিক শিক্ষার্থী মঈনুল হোসেন বলেন, ‘দেশের অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রাপ্তির জন্য তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়া শেষ। অথচ আমাদের সাত কলেজের অনেক আবাসিক শিক্ষার্থী থাকা সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত এসব শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনতে কোনো ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে না। এটি দুঃখজনক। দ্রুত শিক্ষার্থীদের তথ্য সংগ্রহের প্রক্রিয়া শুরুর দাবি জানাচ্ছি।’

তবে শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো ধরনের কোনো নির্দেশনা পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন সরকারি তিতুমীর কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আশরাফ হোসেন। তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদানের বিষয়টি আমাদের নয়, এটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিষয়। সরকারিভাবে আমরা এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো নির্দেশনা পাইনি। শিক্ষার্থীদের করোনা টিকার আওতায় আনতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কিংবা সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরের নির্দেশনা পেলেই আমরা কাজ শুরু করব।’

ইডেন মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য বলেন, ‘আমরা এখন পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের করোনা টিকা দেয়ার জন্য তথ্য সংগ্রহের কোনো ধরনের নির্দেশনা পাইনি। তবে আমরা যে কোনো সময় তথ্য সরবরাহের জন্য প্রস্তুত রয়েছি।’

সাত কলেজের সমন্বয়ক ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার বলেন, ‘সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে এখন পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা আমরা পাইনি।’

চলতি সপ্তাহে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সাত কলেজের অধ্যক্ষদের আনুষ্ঠানিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেই বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলেচনা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে এটি নিয়ে আলোচনা করবো। বিশ্ববিদ্যালয় সাত কলেজের শিক্ষার্থীর টিকা নিশ্চিতের দায়িত্ব না নিলে আমরা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করবো।’

তবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের টিকা প্রাপ্তির বিষয়টি সরকারের সিদ্ধান্ত। যে যে প্রতিষ্ঠানের কাছে চাইবে তারাই তালিকা দেবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীদের জন্য ব্যবস্থা নেবে। সরকারি কলেজ হওয়ায় ওগুলোর (সাত কলেজ) বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে। কলেজগুলোর কর্তৃপক্ষকে বললে তারা দেবে (তালিকা)।’

নাহিদ হাসান/ইএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]