স্থায়ী চাকরি চান ইবির অস্থায়ী কর্মচারীরা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি)
প্রকাশিত: ০৯:৩০ পিএম, ২৩ জুন ২০২১ | আপডেট: ০৯:৩৬ পিএম, ২৩ জুন ২০২১

চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে আবারও আন্দোলনে নেমেছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) অস্থায়ী ভিত্তিতে চাকরিরত কর্মচারীরা। বুধবার (২৩ জুন) সকাল ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অফিসের ফাইল আটকে রেখে আন্দোলনে নামেন তারা।

আন্দোলনকারীরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন। এদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীরাও রয়েছেন। করোনার প্রকোপ বেড়ে গেলে গত বছরের মার্চে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হয়ে যায়। কাজ না থাকায় এসব কর্মচারী অলস সময় পার করতে থাকেন।

পরে দুপুর ১টার দিকে আন্দোলনকারীদের প্রতিনিধি দল প্রক্টরিয়াল বডির সঙ্গে আলোচনায় বসে। এসময় প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন তাদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে প্রশাসনের সাত সদস্যের কমিটি গঠনের কথা জানালে তারা আন্দোলন স্থগিত করেন।

jagonews24

কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়াকে আহ্বায়ক ও রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) মু. আতাউর রহমানকে সদস্য সচিব করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- প্রক্টর অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হোসেন, পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, অধ্যাপক মাহবুবুল আরফিন ও অধ্যাপক রেজওয়ানুল ইসলাম।

অস্থায়ী চাকরিজীবী পরিষদের আহ্বায়ক টিটু মিজান বলেন, পেটে ভাত না থাকলে কোনো আশ্বাসে কাজ হয় না। ১৪-১৫ মাস ধরে বেতন না পেয়ে পরিবার নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছি আমরা।

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক শেখ আবদুস সালাম বলেন, আন্দোলকারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগপ্রাপ্ত কেউ না। তাদের যখন ডাকা হবে, তখন কাজের বিনিময়ে বেতন দেয়া হবে। এখন প্রয়োজন পড়ছে না তাই তারা বেতনও পাচ্ছেন না।

কমিটির বিষয়ে তিনি বলেন, বিভিন্ন বিভাগ ও দফতরে শূন্যপদ আছে কিনা সেসব দেখভাল করার জন্য কমিটি করা হয়েছে। স্বাভাবিক নিয়োগে তাদের মধ্যে কেউ যোগ্য প্রমাণিত হলে চাকরি পাবেন।

রায়হান মাহবুব/আরএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]