ভিকারুননিসার অধ্যক্ষের পাশে আছি, বললেন ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক
ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ক্যাম্পাস প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:২৮ এএম, ৩০ জুলাই ২০২১
ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহার ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার

দুটি ফোনালাপ প্রকাশকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহারের পাশে আছেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার৷ তিনি বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির আহ্বায়ক হিসেবে বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন৷

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাতে জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপচারিতায় তিনি এ কথা জানান৷

ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ বলেন, ‘ফোনে কথা বলা এটা ব্যক্তিগত পর্যায়ের বিষয়৷ যদিও বিষয়টি আমি এখনো ক্লিয়ার না। তবুও এসব প্রকাশ করা আইসিটি আইনের লঙ্ঘন৷ এই ধরনের অডিও সামনে আনার উদ্দেশ্য কী সেখানে যে ধরনের অনিয়ম দুর্নীতি হয় সেগুলো সামনে আসুক?’

বিষয়টি তদন্ত হচ্ছে উল্লেখ করে এই শিক্ষক নেতা বলেন, ‘ভাসা ভাসা তদন্ত করলে হবে না৷ সমস্যার মূল জায়গাটা খুঁজে সমাধান করতে হবে৷ শিক্ষা মন্ত্রণালয় তাকে নিয়োগ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক মানোন্নয়নের জন্য৷ ফোনালাপ ফাঁস অত্যন্ত গর্হিত কাজ৷’

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়ে বর্তমান সরকার একটা রাজনৈতিক ঝুঁকি নিয়ে সফল হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে সরকারি-বেসরকারি কলেজগুলোতে শতভাগ স্বচ্ছতার মাধ্যমে ভর্তি করানো হয়৷ রাজধানীর দু-তিনটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন প্রতিবার সংবাদের শিরোনাম হবে! ভর্তি নিয়ে সমস্যা কেন থাকবে! ভিকারুননিসা একটা নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সেখানে ভর্তির বিষয়ে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা তেমন একটা কঠিন কাজ নয়৷ আমরা চাই সরকার একটা কঠিন অবস্থানে যাক৷ একটা ভালো প্রতিষ্ঠান নষ্ট হয়ে যাক সেটা আমরা কেউই চাই না৷’

অধ্যক্ষ আরও বলেন, ‘ভিকারুননিসায় নাকি নানান সব ফি নেয়া হয়৷ শিক্ষকরা তো বেতন পায়৷ শতশত কোটি টকার তহবিল করার কোনো দরকার আছে বলে আমার মনে হয় না৷ তহবিল বড় হলে সেখানে অনেকের লোলুপ দৃষ্টি চলে আসে৷ কামরুন নাহার আমার (শিক্ষা ক্যাডার) ক্যাডারের সেটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ নয়৷ তিনি তো সেখানে যেতে চাননি৷ সরকার তাকে সেখানে পদায়ন করেছে৷ সেখানে তো পার্মানেন্ট পোস্ট না৷ যেকোনো সময় সরকার তাকে আবার অন্য কোথাও বদলি করতে পারে৷’

প্রতিষ্ঠানটির গভর্নিং বডির সমালোচনা করে এই শিক্ষক নেতা বলেন, ‘ওটা একটা মেয়েদের স্কুল। ৷গভর্নিং বডি কেন ফুল টাইম অফিস করবে, তাদের জন্য কেন আলাদা অফিস থাকবে। এটা শিক্ষকদের জন্য একটা মানসিক চাপ৷’

উল্লেখ্য, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহারের সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির অভিভাবক ফোরামের উপদেষ্টা মীর সাহাবুদ্দিন টিপুর একটি ফোনালাপ ফাঁসের পর বুধবার (২৮ জুলাই) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আরেকটি ফোনালাপ ফাঁস হয়৷ এটি অধ্যক্ষের সঙ্গে গভর্নিং বডির সদস্য মনিরুজ্জামান খোকনের ২৭ মিনিট ৩ সেকেন্ডের একটি ফোনালাপ৷

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) সকাল থেকেই এটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

নাহিদ হাসান/এসজে

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]