কাঁকড়ার পোনা আহরণে উপকূলীয় এলাকার জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি হচ্ছে

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৮:৫৩ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বাংলাদেশে টেকসই কাঁকড়া চাষে ব্যাকটেরিয়া কী হুমকি’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ অ্যান্ড মেরিন রিসোর্স টেকনোলজি (এফএমআরটি) বিভাগ এ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, সুন্দরবনের পরিবেশ ও প্রতিবেশ রক্ষার ক্ষেত্রে কাঁকড়ার ভূমিকা রয়েছে। প্রাকৃতিক উৎস থেকে কাঁকড়ার পোনা আহরণের ফলে সুন্দরবনসহ উপকূলীয় এলাকার জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি হচ্ছে। হ্যাচারিতে পোনা উৎপাদনের মাধ্যমে এ ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে কাঁকড়া চাষ করে চীন, ভিয়েতনাম ও থাইল্যান্ড সফলতা পেয়েছে। আমাদের দেশেও কাঁকড়া চাষ নিয়ে আরও বেশি গবেষণার প্রয়োজন। সুন্দরবনে কি পরিমাণ কাঁকড়া রয়েছে তা নিয়েও এটি জরিপের প্রয়োজন।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা, জীববিজ্ঞান স্কুলের ডিন প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের সদস্য-পরিচালক (ফিশারিজ) ড. মো. মনিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও সাব-প্রজেক্ট ২৯ এর কো-অর্ডিনেটর ড. মো. জুলফিকার আলী বক্তব্য রাখেন।

এফএমআরটি ডিসিপ্লিনের প্রধান প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আব্দুর রউফের সভাপতিত্বে ও প্রকল্পের মুখ্য গবেষক এফএমআরটি ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. এএফএম হাসানুজ্জামানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রকল্পের সহকারী মুখ্য গবেষক এফএমআরটি ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. গাউছিয়াতুর রেজা বানু।

আরএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]