রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের ২ কর্মকর্তা লাঞ্ছিত, ঢাকা কলেজে প্রতিবাদ

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক
ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ঢাকা কলেজ
প্রকাশিত: ০৮:২৫ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সচিব ড. মো. মোয়াজ্জেম হোসেন ও উপ-পরিচালক (অর্থ ও হিসাব) মো. বাদশা হোসেনকে কর্মচারী ইউনিয়নের কয়েকজন কর্মচারীর মাধ্যমে লাঞ্ছিত হওয়ার প্রতিবাদে ঢাকা কলেজে নিন্দা ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ঢাকা কলেজ শিক্ষক পরিষদের আয়োজনে কলেজের শহীদ আ.ন.ম নজিব উদ্দিন খান খুররম অডিটোরিয়ামে এ সভার আয়োজন করা হয়। কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আইকে সেলিম উল্লাহ খোন্দকারের সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ড. মো. আব্দুল কুদ্দুস সিকদার।

সভায় বক্তারা বলেন, শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের বিভিন্ন সময়ে লাঞ্ছনা ও নির্যাতনের শিকার হতে হয়। এ জাতীয় ঘটনার পর দৃষ্টান্তমূলক বিচার না হওয়ায় বারবার এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। একইভাবে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সচিব ও উপ-পরিচালকের ওপরও কর্মচারী ইউনিয়নের নেতা নামধারী কতিপয় দুষ্কৃতকারী হামলা চালিয়েছে।

এই ঘটনা অত্যন্ত নিন্দনীয় ও ধৃষ্টতাপূর্ণ উল্লেখ করে বক্তারা শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের ওপর দুর্বৃত্তায়ন আর চলতে দেওয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দেন।

কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক এ.টি.এম. মইনুল হোসেন বলেন, শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের ওপর হামলার পর যথোপযুক্ত বিচার না হওয়ায় বারবার এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। আমরা এর আগেও দেখেছি, অনেক ক্ষেত্রেই শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তারা ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আমরা চাই না এ ধরনের ঘটনা আর ঘটুক। অবিলম্বে দোষীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানোর দাবি জানান তিনি।

এছাড়া আরও অনেক ক্ষেত্রে শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তাদের লাঞ্ছিত হতে হয় উল্লেখ করে কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক সেলিম উল্লাহ খোন্দকার বলেন, কিছুদিন পরপরই দেখি আমাদের সহকর্মীরা বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। অনেকেই অন্যায় আচরণের শিকার হয়েও মুখ বুজে তা সহ্য করতে হচ্ছে। এ ধরনের বৈষম্য থেকে বের হয়ে আসতে হবে। সবাই একসঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দুর্বৃত্তদের রুখে দিতে হবে।

jagonews24

প্রতিবাদ সভায় শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তাদের লাঞ্ছনার প্রতিবাদে নিন্দা প্রস্তাব পাস করা হয় এবং চারটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেগুলো হলো-

>> রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে সংঘটিত ঘটনার তীব্র নিন্দা জানানো ও অভিযুক্তদের বরখাস্তসহ তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য বোর্ডের চেয়ারম্যানকে অনুরোধ জানানো;
>> ঢাকা কলেজ থেকে একটি প্রতিনিধি দল রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের গিয়ে শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তাদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করা;
>> ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তী প্রয়োজনীয় কঠোর কর্মসূচি পালন করা; এবং
>> সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন কলেজের ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক পুরঞ্জয় বিশ্বাস, বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সানজিদা আক্তার, সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, ড. মো. জিল্লুর রহমান, আ ক ম রফিকুল আলম, মো. আলমগীর মিয়া, শিক্ষক পরিষদের কোষাধ্যক্ষ মো. ওবায়দুল করিম, আদনান হোসেন, মো. মনসুর আলী প্রমুখ।

জানা যায়, গত ১২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার আগে বোর্ডসচিব প্রফেসর ড. মোয়াজ্জেম হোসেন, হিসাব বিভাগের উপ-পরিচালক বাদশা হোসেনসহ তিন কর্মকর্তা সচিবের কক্ষে সংক্ষিপ্ত সভা করছিলেন। এসময় অফিসার্স কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিদ হোসেন, মানিক চন্দ্র সেনসহ কয়েকজন কর্মকর্তা জোর করে সচিবের কক্ষে প্রবেশ করেন। অফিসার্স সমিতির নেতারা প্রথমে হিসাব বিভাগের উপ-পরিচালক বাদশা হোসেন কয়েকজন কর্মকর্তার সার্ভিস ফাইলের কাগজপত্র গোপনে ফটোকপি করেছেন অভিযোগ তুলে তার ওপর চড়াও হন।

এ নিয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে কল্যাণ সমিতির কর্মকর্তাদের চরম বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে কল্যাণ সমিতির নেতারা সচিবসহ তিন কর্মকর্তাকে টেনে-হিঁচড়ে শারীরিকভাবে হেনস্তা করেন। খবর পেয়ে অন্য কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পুলিশ নিয়ে সচিবসহ তিন কর্মকর্তাকে উদ্ধার করেন।

নাহিদ হাসান/এআরএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]