জবির দুই সহকারী প্রক্টরকে মিনিবাসের ধাক্কা, চালক আটক

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৪:৫৩ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০২১

বাহাদুর শাহ পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি মিনিবাস রিকশা আরোহী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) দুই সহকারী প্রক্টরকে ধাক্কা দিয়েছে বলে জানা গেছে। এতে দুজনই রাস্তায় পড়ে যান এবং রিকশাচালক গুরুতর আহত হন।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই সহকারী প্রক্টর শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক কাজী ফারুক হোসেন এবং মনোবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক কাজী নূর হোসেন মুকুল রিকশায় করে ক্যাম্পাসে আসছিলেন। এসময় বাহাদুর শাহ পরিবহনের একটি গাড়ি তাদের রিকশায় ধাক্কা দেয়। এতে রিকশাচালকসহ তারা দুজন রাস্তায় পড়ে যান। এসময় মিনিবাসের চালক জুয়েল মিয়া বেপরোয়া গতিতে চলে যেতে চাইলে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা কোতোয়ালি থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক নাহিদ ইসলাম গাড়িটি আটক করেন। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে গাড়িচালককে এনে লাইসেন্স দেখাতে বলা হলে তা দেখাতে না পারায় তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ বিষয়ে সহকারী প্রক্টর কাজী ফারুক হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, গাড়িটি বেপরোয়া গতিতে আমাদের রিকশায় ধাক্কা দেয়। আমরা রাস্তায় পড়ে যাই। আল্লাহ্ আমাদের বাঁচিয়েছেন। রিকশাচালক প্রচণ্ড ব্যথা পেয়েছেন। তিনি হাত উঁচু করতে পারছেন না। আমরা তাকে তাৎক্ষণিক ৫০০ টাকা দিই। মিনিবাসের চালককে ধরতে গিয়ে উনি (রিকশাচালক) কখন চলে গেছেন দেখিনি।

তিনি আরও বলেন, মাঝেমধ্যেই আমাদের শিক্ষার্থীদের গণপরিবহনে হয়রানির শিকার হতে হয়। আজ আমরা শিকার হলাম। এসব গাড়ির চালকেরা কোনো শৃঙ্খলার মধ্যে নেই। আমরা গাড়িচালককে লাইসেন্স দেখাতে বললে দেখাতে পারেনি। তাই তাকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

মিনিবাসটির চালক জুয়েল জাগো নিউজকে বলেন, আমার পা পিছলে যাওয়ায় ভালোভাবে ব্রেক করতে পারিনি। আর কখনো এমন হবে না।

এ বিষয়ে পুলিশের উপ-পরিদর্শক নাহিদ ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, শিক্ষকদের ধাক্কা দিয়ে গাড়িচালক চলে যাচ্ছিল। আমি গাড়িসহ চালককে আটক করি। তাকে থানায় নিয়ে যাচ্ছি। গাড়ির কাগজপত্র ও চালকের লাইসেন্স দেখে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এমকেআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]