রাবিতে শহীদ মীর আব্দুল কাইয়ূম স্মরণে সভা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৬:৫৭ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০২১

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) শহীদ মীর আব্দুল কাইয়ূম স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মনোবিজ্ঞান বিভাগের উদ্যোগে বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) দুপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় শহীদ মীর আব্দুল কাইয়ূমের জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা করেন শিক্ষাবিদ, বিজ্ঞানী ও পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. অরুণ কুমার বসাক।

তিনি বলেন, শহীদ কাইয়ূম জ্ঞানত অবধারিত মৃত্যুকে অবজ্ঞা করে, অকৃপণ মনকে প্রসারিত করে মুক্তিযুদ্ধের কর্মধারায় যোগ দিয়েছিলেন। তার শহীদ হওয়ার পেছনে তৎকালীন বিশ্ববিদ্যালয়ের তার নিজ বিভাগের শিক্ষক পাকিস্তানের দোসর ড. মতিউর রহমান ও ড. ওয়াসিম বাগীর হাত ছিল।

সভায় মনোবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. মাহবুবা কানিজ কেয়ার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও অধ্যাপক ড. সুলতান-উল-ইসলাম।

jagonews24

উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে জড়িত সব শহীদের স্মৃতি, কর্ম সংরক্ষণ এবং প্রয়াণ দিবসের আয়োজন করার ব্যাপারে আমরা শিগগির প্রশাসনিকভাবে পদক্ষেপ নিবো।

গণমাধ্যমকর্মী শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, গ্রামে গ্রামে মিউজিয়াম তৈরি না করা মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছরের প্রথম ব্যর্থতা হিসেবে আমি মনে করি। মুক্তিযুদ্ধের ওপর প্রতিমাসে জার্নাল তৈরি করা উচিত যাতে মুক্তিযুদ্ধের সব বিষয়ে শিক্ষার্থীরা অবগত থাকতে এবং রিসার্চ করতে পারে।

স্মরণসভার আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানের শুরুতে শহীদ বুদ্ধিজীবী মীর আব্দুল কাইয়ূমের জীবনীভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্র ‘মরণজয়ী শহীদ মীর কাইয়ূম’ প্রদর্শন করা হয়।

সালমান শাকিল/ইউএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]