চবি ছাত্রলীগে পদ পেতে চান ১৪০০ নেতাকর্মী

পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ছাত্রলীগ। কমিটিতে পদ পেতে এক হাজার ৪০০ জন আবেদন করেছেন। জানা গেছে, এবার ২০১ জনের ঠাঁই হতে পারে কমিটিতে।

সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালের ১৪ জুন চবিতে দুই সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এতে রেজাউল হক রুবেলকে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক করা হয় ইকবাল হোসেন টিপুকে। এরপর নানা সময়ে কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার চেষ্টা করেন তারা দুজন। কিন্তু করোনার কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকাসহ নানা জটিলতায় সেই উদ্যোগ আলোর মুখ দেখেনি।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর এবার পূর্ণাঙ্গ কমিটি এবং বিভিন্ন হল-অনুষদ কমিটি করতে চায় শাখা ছাত্রলীগ। এ উপলক্ষে গত ৯ নভেম্বর থেকে পূর্ণাঙ্গ কমিটির জন্য আগ্রহী নেতাকর্মীদের জীবনবৃত্তান্ত জমা দিতে বলা হয়। নির্ধারিত সময় ২৮ নভেম্বরের মধ্যে এতে প্রায় এক হাজার ৪০০ নেতাকর্মী আবেদন করে।

এদিকে কমিটি গঠন নিয়ে এক ধরনের প্রাণচাঞ্চল্য বিরাজ করছে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে। তারা বলছেন, বারবার উদ্যোগ নেওয়া হলেও অজানা কারণে কমিটি আর হয়নি। এরমধ্যে নেতাকর্মীদের অনেকের ছাত্রজীবন শেষ হয়ে যাচ্ছে। আবার অনেকে ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে চলেও গেছেন। তবে দীর্ঘদিন পর হলেও এমন উদ্যোগ তাদের জন্য আনন্দের।

জানতে চাইলে শাখা ছাত্রলীগে পদপ্রত্যাশী এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা বিভাগের শিক্ষার্থী জয় বিশ্বাস জাগো নিউজকে বলেন, ২০১৪ সালে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছি। এরপর থেকে জাতির জনকের আদর্শ বুকে ধারণ করে ছাত্রলীগের জন্য কাজ করে গেছি। কোনো পদ-পদবির জন্য ছাত্রলীগে আসিনি। আমাদের নেতারা যদি যোগ্য মনে করে দায়িত্ব দেন, তবে সেই দায়িত্ব পালন করে যাবো।

চবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপু জাগো নিউজকে বলেন, শিগগির পূর্ণাঙ্গ কমিটির সঙ্গে হল-ফ্যাকাল্টি কমিটিও দেওয়া হবে। সিনিয়রদের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে এবং অপেক্ষাকৃত জুনিয়রদের হল-অনুষদ কমিটিতে রাখা হবে। বিষয়টি নিয়ে আমরা কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে কথা বলেছি। চবির জন্য কেন্দ্র থেকে সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্তরা সার্বিক বিষয় তদারকি করছেন।

তিনি আরও বলেন, কমিটি নিয়ে কথা বলতে আমরা এখন ঢাকায় আছি। চট্টগ্রামে এসে সার্বিক বিষয়ে গুছিয়ে কাজ শুরু করবো। এবার যোগ্য ও ত্যাগী ছাত্রদের কমিটিতে রাখা হবে। জামায়াত-বিএনপি ব্যাকগ্রাউন্ড ফ্যামিলির কোনো ছেলেকে কমিটিতে রাখা হবে না। এছাড়া অতীতে সংগঠনবিরোধী কাজে জড়িত ছিল, কমিটিতে এরকম কারও ঠাঁই হবে না।

চবি ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বলেন, করোনার কারণে এতোদিন কমিটি দেওয়া সম্ভব হয়নি। এবার পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে। এতে আওয়ামী ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এছাড়া কমিটিতে কোনো অছাত্র ও বিভিন্ন অপরাধে অভিযুক্তদের ঠাঁই হবে না।

মিজানুর রহমান/জেডএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]