রাত আটটার পর রাবিতে বহিরাগতদের প্রবেশ নিষেধ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৩৫ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০২২

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) ক্যাম্পাসে রাত আটটার পর বহিরাগতদের বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সম্প্রতি ক্যাম্পাসে ছিনতাই ও বহিরাগতের উৎপাত বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সুষ্ঠু স্বাভাবিক ও নিরাপদ পরিবেশ বিঘ্নিত হচ্ছে। এ অবস্থা নিরসনকল্পে প্রক্টোরিয়াল বডির সঙ্গে উপাচার্যের এক আলোচনা সভায় এমন সিদ্ধান্ত নেন তারা।

সোমবার (১৭ জানুয়ারি) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর লিয়াকত আলী।

উক্ত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন রাবির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও অধ্যাপক ড. মো. সুলতান-উল-ইসলাম, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. দুলাল চন্দ্র বিশ্বাসএবং জনসংযোগ প্রশাসক অধ্যাপক ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে।

ক্যাম্পাসের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা শেষে উক্ত সভায় নিম্নোক্ত সিদ্ধান্তসমূহ গৃহিত হয়-

বহিরাগতদের চিহ্নিত করতে শিক্ষার্থীর পরিচয়পত্র/জাতীয় পরিচয়পত্র চেক করা ও অকারণে ঘোরাফেরা করা বহিরাগতদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা। প্রধান গেটগুলোতে শৃঙ্খলা বৃদ্ধি ও পুলিশ নজরদারীর ব্যবস্থা করা। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন মাঠ, বাগান ও ভবনের পার্শ্ববর্তী স্থানে পর্যাপ্ত আলো ও মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা করা। সন্দেহজনক ব্যক্তি, গাড়ি, রিকশার গতিবিধি নজরদারীতে রাখা।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাগুলোর সহায়তায় ক্যাম্পাসে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করা। ক্যাম্পাসে অনুমোদনবিহীন দোকান চিহ্নিত করে উচ্ছেদের ব্যবস্থা করা এবং অনুমোদিত দোকান রাত আটটার মধ্যে বন্ধ করা।

প্রধান রাস্তাগুলোতে বুক স্থাপন করা। নিষিদ্ধ দ্রব্যাদি বহন, সংরক্ষণ ও হস্তান্তর রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা। সাম্প্রতিক সময়ে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য্য ও পরিবেশ রক্ষায় ক্যাম্পাস পরিচ্ছন্ন রাখার ব্যবস্থা করা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে কোনো অনুষ্ঠান করতে শিক্ষার্থীদের বিভাগীয় সভাপতি ও শর্ত সাপেক্ষে প্রক্টরের অনুমতি নিতে হবে। তবে বহিরাগতদের পিকনিকের কোনো অনুমতি দেওয়া হবে না বলে জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

এফএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]